কোমর ভেঙেছে বগুড়ার চরবাসীর

সারা বাংলা

কোমর ভেঙেছে বগুড়ার চরবাসীর

পানি সরে গেছে, জেগে উঠেছে বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ। তবে কোথাও ফসলের চিহ্ন নেই। পাট, ধান, সবজি—সব পচে গেছে। দুই মাস বন্যায় তলিয়ে থাকা বগুড়ার সারিয়াকান্দির দুর্গম হাটবাড়ি চরে সম্প্রতি গিয়ে দেখা গেল এ চিত্র।

সারিয়াকান্দি শহরের কালীতলা খেয়াঘাট থেকে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় প্রায় দুই ঘণ্টা লাগে হাটবাড়ি চরে পৌঁছাতে। চরের তিন দিকে জামালপুরের ইসলামপুর ও মাদারগঞ্জ এবং গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলা। এখানে প্রায় সাড়ে চার হাজার মানুষের বাস। বেশির ভাগেরই জীবিকা চলে যমুনা নদীতে মাছ ধরে। বাকিরা প্রান্তিক কৃষক ও দিনমজুর।

চরের কিনারে দেখা হলো ৭৫ বছর বয়সী ফজলু শেখের সঙ্গে। বললেন, বন্যার সঙ্গে এবার ভাঙনের যে তাণ্ডব ছিল, তাতে মেরুদণ্ড ভেঙে গেছে চরবাসীর। বসতবাড়ি, ফসল হারিয়ে তাঁরা এখন নিঃস্ব।

চরের কয়েকজন জানালেন, এই সময়ে চরের সবখানে জাগ দেওয়া পাটের গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। পাট ঘরে তোলার আনন্দে কৃষকের চোখেমুখে থাকে খুশির ঝিলিক। অথচ এবার বন্যা ও নদীভাঙনে বসতবাড়ি, ফসল হারিয়ে সবাই দিশেহারা। শুধু হাটবাড়ি নয়, কোমর ভেঙে গেছে সারিয়াকান্দির চরাঞ্চলের প্রায় সবার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *