সংবাদ প্রতিদিন বিডি

সংবাদ প্রতিদিন বিডি

শিক্ষার্থীদের পদচারণায় আবারো মুখরিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো

1 min read

প্রায় দেড়বছর পর রাজধানীসহ সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হলো। সকাল থেকেই প্রাথমিক, মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের শ্রেণী কক্ষে স্ব-শরীরে পাঠদান শুরু হয়। শিক্ষার্থীরা বই-খাতা নিয়ে সকাল সকাল হাজির হয় চিরচেনা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। অনেক দিন পর পুরোনো বন্ধুদের কাছে পেয়ে উচ্ছ্বসিত তারা। স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের বরণ করতে স্কুলগুলোতে ছিল নানা আয়োজন। 

স্কুল ড্রেস, বই-খাতা আর কাধেঁ ব্যাগ নিয়ে আবারো ক্লাসরুমে শিক্ষার্থীরা। রাজধানীর বর্ণমালা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের চিরচেনা দৃশ্য। সবার চোখে-মুখে উচ্ছাস। দীর্ঘদিন পর স্কুল খুললেও সহপাঠীদের সাথে নেই আগের সেই হইহুল্লোর। সামনের ব্যাঞ্চ ধরা নিয়ে নেই কোনো প্রতিযোগীতা। স্কুলগুলোর প্রধান ফটকগুলোতে তাপমাত্রা পরিমাপক যন্ত্র দিয়ে মাপা হচ্ছে শিক্ষার্থীদের শরীরের তাপমাত্রা। করা হচ্ছে হ্যান্ড সেনেটারিজ। স্কুল থেকে দেয়া হচ্ছে মাস্ক। প্রতিটি শিক্ষার্থীদের দেয়া হচ্ছে সামাজিক দুরুত্ব বজায় রেখে স্কুলে অবস্থানের নির্দেশনা। 

ফুল আর চকলেট দিয়ে প্রিয় শিক্ষার্থীদের বরণ করতে ভুল করেননি শিক্ষক আর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এমন আয়োজন রাজধানীর প্রায় সব স্কুলগুলোতেই। শিক্ষার্থী আর অভিভাবকদের মাঝে ছিল ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুললেও প্রতিদিন ক্লাস হবে পঞ্চম এবং দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের। সাথে করে এস.এস.সি এবং এইচ.এস.সি পরীক্ষার্থীদেরও প্রতিদিন ক্লাস হবে। আর বাকী ক্লাসগুলোর জন্য স্কুলগুলো তৈরী করেছে আলাদা আলাদা রুটিন। 

করোনা মহামারীর জন্য ২০২০ সালের ১৭ই মার্চ থেকে সরকারী নির্দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ ঘোষনা করা হয়। 

এদিকে রাজধানীর আজিমপুর গার্লস স্কুল পরিদর্শন করে শিক্ষামন্ত্রী করোনার পাশাপাশি ডেঙ্গু নিয়ে সচেতনতা থাকার আহ্ববান জানিয়েছে। 

তিনি বলেন, স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়ার জন্য এখন যথার্থ সময়। এবং অবশ্যই আমাদের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে চিন্তা গ্রহন করে রেখেছি। যদি কোনরকম আবারো করোনার পরিস্থিতি ব্যপাক আকাড়ে বা ভয়ঙ্কর আকারে দেখা দেয় অবশ্যই আমরা শ্রেণী কক্ষে শিক্ষার্থীদের না রেখে কিভাবে প্ররিত্রান পাওয়া যায় সেই ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য প্রস্তুত। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *