Templates by BIGtheme NET
Home / ব্রেকিং নিউজ / ছাত্রদলের ১২ বিক্ষুব্ধ নেতাকে বহিষ্কারের ঘোষণা বিএনপির ।। songbadprotidinbd.com

ছাত্রদলের ১২ বিক্ষুব্ধ নেতাকে বহিষ্কারের ঘোষণা বিএনপির ।। songbadprotidinbd.com

  • ২৩-০৬-২০১৯
  • photo-1561254296নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  বয়সসীমা উঠিয়ে দিয়ে সবাইকে নিয়ে কমিটি গঠনের দাবিতে আন্দোলনরত জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ ১২ নেতাকে বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি।

    গতকাল শনিবার রাতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ ঘোষণা দিয়ে বলা হয়, ‘দলীয় শৃঙ্খলাবহির্ভূত কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের নিম্নবর্ণিত নেতৃবৃন্দকে দলের প্রাথমিক সদস্যপদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।’

    এই আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে বলে বিএনপির বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

    এই নেতারা হলেন—ছাত্রদলের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক বাশার সিদ্দিকী, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি জহিরউদ্দিন তুহিন, ছাত্রদলের ভেঙে দেওয়া কমিটির সহসভাপতি এজমল হোসেন পাইলট, ইকতিয়ার কবির, জয়দেব জয়, মামুন বিল্লাহ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, বায়েজিদ আরেফিন, সহসাধারণ সম্পাদক দবির উদ্দিন তুষার, সহসাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আজম সৈকত, আবদুল মালেক ও সদস্য আজীম পাটোয়ারী।

    গত ৩ জুন রাতে ছাত্রদলের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি বাতিল করে দেয় বিএনপি। আগামী ৪৫ দিনের মধ্যে কাউন্সিলের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠনের কথা বলা হয়। কাউন্সিলে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ব্যাপারে ২০০০ সালে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার ন্যূনতম যোগ্যতার শর্তারোপ করা হয়।

    এর প্রতিবাদে গত ১০ জুন ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধরা নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেন। পরে তাঁরা তাঁদের আন্দোলন স্থগিত করেন। কিন্তু গত এক সপ্তাহ বিক্ষুব্ধরা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন দুই ঘণ্টা অবস্থান কর্মসূচির সিদ্ধান্ত নেন।

    সর্বশেষ গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচে এক সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রদলের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির একাংশের নেতারা ছয় মাসের জন্য স্বল্পকালীন অথবা নিয়মিত ছাত্রদের দিয়ে ছাত্রদলের কমিটি গঠনের দাবি জানান।

    এ সময় বিগত কমিটির সহসভাপতি মুহাম্মদ এজমল হোসেন পাইলট বলেন, ‘আমাদের দাবি ছয় মাসের জন্য একটি স্বল্পকালীন কমিটি গঠন করা হোক। অথবা নিয়মিত ছাত্রদের দিয়ে কমিটি গঠন করা হোক। ২০০০ সালের এসএসসির বাধ্যবাধকতা তুলে দিতে হবে। কারণ, ২০০০ সালে এসএসসি পাস করা একজন ছাত্রের আনুমানিক বয়স ৩৫ বছর। তার মাত্র দু-তিন বছর আগে ’৯৮/’৯৭/’৯৬ সালে এসএসসি পাস করা সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সহসভাপতি ও যুগ্ম সম্পাদকরা রয়েছেন। ৩৫-৩৬ বছর বয়সে ছাত্রদল করা গেলে ৩৭-৩৮ বচর বয়সে কেন করা যাবে না?’

    এজমল হোসেন পাইলট আরো বলেন, এ বয়স নির্ধারণের সঙ্গে গভীর ষড়যন্ত্র রয়েছে। সবাইকে বাদ দিয়ে সিন্ডিকেটের ব্যক্তিকেন্দ্রিক বয়স নির্ধারণ ছাত্রদলের লাখো লাখো নেতাকর্মী মোটেও মেনে নিতে পারছে না।

    (Visited 6 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *