Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / Slide Show / ঈদে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করলে আইনি ব্যবস্থা ।। songbadprotidinbd.com

ঈদে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করলে আইনি ব্যবস্থা ।। songbadprotidinbd.com

  • ২৬-০৫-২০১৯
  • dmpংবাদ প্রতিদিন বিডি ডেস্কঃ  এবারের ঈদে বিআরটিএ কর্তৃক প্রদত্ত চার্টের বাহিরে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া। শনিবার দুপুরে রাজধানীর মহাখালী আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালে আয়োজিত আইন-শৃঙ্খলা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা সংক্রান্তে মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

    মহাখালী বাস টার্মিনাল সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি ও ঢাকা জেলা বাস মিনিবাস সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির আয়োজনে এবং ট্রাফিক উত্তর বিভাগের সার্বিক সহযোগিতায় মতবিনিময় সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

    সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঈদে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রবণতা লক্ষ করা যায়। তবে এর মাত্রা অনেক কমেছে। আমাদের গোয়েন্দারা কাজ করছে, সেই সাথে অন্য বাহিনীর গোয়েন্দা সংস্থাও অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিরুদ্ধে কাজ করছে। বিআরটিএ কর্তৃক প্রদত্ত চার্টের বাহিরে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। সেই যেই হোক, যত ক্ষমতাশালী হোক, তার পরিচয় যাই হোক অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করলে তার বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ ব্যাপারে ট্রাফিক পুলিশকে শূন্য সহিষ্ণুতা মনোভাব নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

    তিনি বলেন, কোনো রকম নিরাপত্তা ঝুঁকি ছাড়ায় মহানগরীবাসী তারা পরিবার পরিজনসহ ঈদ উৎসব করবে, শপিং করবে নির্বিঘ্নে ঘুরাঘুরি করবে, তাদের নিরাপত্তাহীনতা ঘটবে না সেটা নিশ্চিত করার জন্য আমরা পরিবহন মালিক-শ্রমিক ভাইদের সাথে মতবিনিময় করছি। সড়ক পরিবহনের শৃঙ্খলা নিয়ে চারদিকে যেভাবে দাবি উঠেছে তা নিয়ে আমাদের মালিক-শ্রমিক ও প্রশাসনকে ভাবতে হবে। পরিবহন ব্যবস্থা যদি দীর্ঘদিন অনিয়মের মধ্যে থাকে তাহলে এই পরিবহন ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়বে। যানবাহন ও সড়ক সেক্টরে একটি শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করা একান্ত জরুরী।

    অজ্ঞান পার্টি প্রতিরোধে কমিশনার বলেন, ডিএমপির পক্ষ থেকে ঢাকা শহরে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। রোজার আগে থেকে এসব অপরাধের বিরুদ্ধে কাজ করছি, তথ্য সংগ্রহ করছি এবং নিবর্তনমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। ১০০ বেশি অজ্ঞান পার্টির, চোর পার্টি, ছিনতাই পার্টি সদস্যকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। রাতদিন ২৪ ঘণ্টা পোশাকে ও সাদা পোশাকে মহানগর পুলিশ সব জায়গায় ঘুরে বেড়াচ্ছে।

    তিনি বলেন, বিশেষ করে বাস টার্মিনাল, লঞ্চ ঘাট ও রেল স্টেশনে পুলিশের উপস্থিতি বৃদ্ধি করা হয়েছে। অজ্ঞান পার্টি হকার ও যাত্রী বেশে টার্মিনালে অবস্থান করে। প্রতিটি টার্মিনালে আমরা রবিবার থেকে অজ্ঞান পার্টি বিরোধী ডকুমেন্টারি বড় স্কিনে প্রচার করবো। টার্মিনাল কর্তৃপক্ষকে বলবো, তারা পরিচিত হকার ছাড়া টার্মিনালে কোনো হকার প্রবেশ করতে যাতে না দেয়। আমরা আর অজ্ঞান-মলম পার্টির খবর শুনতে চাই না।

    তিনি বলেন, বাস টার্মিনালে হলুদ রেখা দেয়া হয়েছে। এই ‍রেখা পার হলে কোনো গাড়ি দাঁড়িয়ে থাকতে পারবে না, তাকে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যেতে হবে। গাড়ি উঠানোর জন্য যাত্রীদের ও তাদের ব্যাগ নিয়ে টানাটানি করে হয়রানি করা যাবে না।

    পরিবহন শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, মালিক-শ্রমিকদের ও ড্রাইভার-হেলপারদের মধ্যে কাউকে মাদকাসক্ত বলে সন্দেহ হলে তার ডোপ টেস্ট করান। তাকে গাড়ির কাজে নিয়োগ করবে না। প্রয়োজনে পুলিশ আপনাদের সহযোগিতা করব। মাদকাসক্ত কোনো লোক গাড়ির ড্রাইভার, হেলপার ও কনডাক্টর হতে পারবে না।

    মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস্) কৃষ্ণ পদ রায়, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ, যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) মোসলেহ উদ্দিন আহমদ, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মো. উসমান আলী, মহাখালী বাস টার্মিনাল মালিক সমিতির সভাপতি হাজী আবুল কালাম প্রমুখ।

    (Visited 4 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *