Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / ফেনী / নুসরাত হত্যা: যারা রয়েছেন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের তদন্ত কমিটিতে ।। songbadprotidinbd.com

নুসরাত হত্যা: যারা রয়েছেন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের তদন্ত কমিটিতে ।। songbadprotidinbd.com

  • ১৮-০৪-২০১৯
  • PHQ-Nusrat-696x392নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  ফেনীর সোনাগাজীতে মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে এক বিশেষ তদন্ত কমিটি গঠন করেছে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স। ৫ সদস্যের কমিটিতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (মিডিয়া) রুহুল আমিন। কমিটিকে ৭ কার্য দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। যদিও কমিটির প্রধান ডিআইজি রুহুল আমিন সংবাদ প্রতিদিন বিডিকে জানিয়েছেন, যতো দ্রুত সম্ভব তারা এই ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিবেন।

    পুলিশের উচ্চ পদস্থ একটি সূত্র সংবাদ প্রতিদিন বিডিকে নিশ্চিত করেছে, গঠিত তদন্ত কমিটিতে ডিআইজি রুহুল আমিন ছাড়াও রয়েছেন- সিআইডি চট্টগ্রাম রেঞ্জের দায়িত্বে থাকা একজন পুলিশ সুপার (এসপি), চট্টগ্রাম রেঞ্জের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবং পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সেরই একজন ইন্সপেক্টর।

    ১৭ এপ্রিল বুধবার সন্ধ্যায় তদন্ত কমিটির প্রধান ডিআইজি রুহুল আমিন সংবাদ প্রতিদিন বিডিকে বলেন, আমরা ঘটনাটি গভীরভাবে তদন্ত করছি। এই কাজেই আমরা ব্যস্ত রয়েছি। এখনই বেশি কিছু বলা যাচ্ছে না। আমিসহ পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি ঘটনাটি নিয়ে কাজ করছি। দ্রুততম সময়ে মধ্যেই আমরা তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবো।

    জানা গেছে, ১০ এপ্রিল নুসরাত জাহান রাফি ঢাকা মেডিকেলে কলেজের বার্ন ইউনিটে মারা যাওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী অধিক শোক প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে তিনি এই ঘটনায় জড়িত কাউকে ছাড় দেবেন না বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। এর পরেই ১৩ এপ্রিল শনিবার পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এই ৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে। ঘটনার সামগ্রিক বিষয়গুলো তদন্তের পাশাপাশি ফেনীর স্থানীয় পুলিশের কোনো গাফেলতি ছিলো কিনা সেটিতে গুরুত্ব দিচ্ছে বলে সূত্র জানিয়েছে। ইতোমধ্যে ওই তদন্ত কমিটি ফেনীতে উপস্থিত হয়ে কাজ করছে বলে জানা গেছে।

    পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংবাদ প্রতিদিন বিডিকে বলেন, নুসরাত জাহান রাফিকে আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে মারার পর পুলিশের ভূমিকা নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন ওঠে। বিশেষ করে ঘটনার সময়ে সোনাগাজীর ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে নুসরাতকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করার সময় ভিডিও ধারন করা এবং সেই ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়গুলোই তদন্তকারীরা বিস্তারিতভাবে জানার চেষ্টা করবেন।

    তিনি আরো জানান, নুসরাতের ঘটনার পর পুলিশ আর কি কি ভূমিকা নিতে পারতো বা জেলা পুলিশসহ কারো কোনো গাফিলতি রয়েছে কিনা সেটিও জানার জন্য এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা ফেনী জেলার পুলিশ সুপার এস.এম জাহাঙ্গীর আলম সরকারসহ ফেনী জেলা ও সোনাগাজী থানার অন্যান্য পুলিশ সদস্যদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা রয়েছে। এছাড়া নুসরাতের পরিবারের সাথেও কথা বলবেন তারা।

    ৬ এপ্রিল শনিবার সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসার ছাদে নুসরাতের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় একদল মুখোশধারী। এ সময় মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার বিরুদ্ধে দায়ের করা যৌন হয়রানির মামলা প্রত্যাহারের জন্য নুসরাতকে চাপ দেয় তারা। শ্লীলতাহানীর প্রেক্ষিতে মামলাটি সঠিক করা হয়েছে উল্লেখ করে নুসরাত তার সিদ্ধান্তে অনড় থাকলে মুখোশধারীরা নুসরাতের হাত পা চেপে ধরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে তাকে পরিবারের সদস্যরা ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে এসে ভর্তি করায়। চিকিৎসার ৫ দিনের মাথায় আগুনে ঝলসে যাওয়া নুসরাত ১০ এপ্রিল রাতে মারা যান। পরে তাকে ফেনীর সোনাগাজীতে গ্রামের বাড়িতেই তার দাদীর কবরের পাশেই দাফন করা হয়। এই ঘটনা তদন্ত ও দোষিদের দ্রুত গ্রেফতারের পাশাপাশি বিচারের আওতায় আনার জন্য কড়াকড়ি নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

    (Visited 17 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *