Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / অন্যান্য / গত বছর নানা ঘটনায় দক্ষিণ আফ্রিকায় ১১৭ বাংলাদেশি নিহত ।। songbadprotidinbd.com

গত বছর নানা ঘটনায় দক্ষিণ আফ্রিকায় ১১৭ বাংলাদেশি নিহত ।। songbadprotidinbd.com

  • ০৭-০১-২০১৯
  • image-56336-1546844764সংবাদ প্রতিদিন বিডি ডেস্কঃ  প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকা দিন দিন অনিরাপদ হয়ে যাচ্ছে। দেশটিতে কমবেশি পৃথিবীর সব দেশের মানুষ ব্যবসা বানিজ্য করে বসবাস করলেও একমাত্র বাংলাদেশিরা এ দেশে নিরাপদ নয়।

    দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশিদের ২০১৮ সালটি মোটেও ভাল কাটেনি। নান্দনিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের এ দেশটিতে ব্যবসা বানিজ্য নিয়ে প্রবাসীদের ভাল থাকার কথা থাকলেও অপরাধ প্রবণতা ও সাম্প্রতিক ব্যবসায়িক মন্দার কারণে বাংলাদেশিদের সুখ যেন সোনার হরিন হয়ে গেছে।

    ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারী থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যবসায়িক মন্দা, চুরি, ছিনতাই অপহরণ ও হত্যা ছিল প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য নিত্যদিনের ঘটনা।

    দক্ষিণ আফ্রিকান পুলিশ সার্ভিস জানিয়েছে, গত বছর নানা ঘটনায় মারা গেছে ১১৭ জন। গুলিবিদ্ধ হয়ে পঙ্গু হয়েছে ৫৬ জন বাংলাদেশি নাগরিক। অপহরণের ১৮টি এবং দোকান ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে ৫৩৩টি।এছাড়াও গত বছরের শেষ এক সাপ্তাহে নিহত হয়েছে আরো চার বাংলাদেশি।

    পুলিশ সদর দপ্তর বলেছে, প্রতিবছরে অনেক বাংলাদেশিরা এত দুর্ঘটনার শিকার হলেও অপরাধীদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কোন মামলা দায়ের হয়নি। সব মামলা পুলিশের পক্ষে ইউডি মামলা হিসেবে গ্রহন করা হয়েছে।

    ভিকটিমদের পক্ষে সুনির্দিষ্ট কোন মামলা না থাকায় সংশ্লিষ্ট ঘটনায় কোন আসামি গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

    সব মিলিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা বাংলাদেশির জন্য ২০১৮ সালটি আতঙ্ক আর হতাশার বছর।

    অনেক সময় দেখা যায়, হত্যাকাণ্ডের শিকার ব্যক্তির কোন আত্নীয় স্বজন সাউথ আফ্রিকায় না থাকায় এ হত্যাকাণ্ড নিয়ে তেমন কেউ আগ্রহ দেখায় না।

    অন্যদিকে বাংলাদেশি ছাড়া অন্য কোন বিদেশি নাগরিক দক্ষিণ আফ্রিকায় খুনের শিকার হলে ঐ দেশের কমিউনিটি নেতারা বাদী হয়ে সংশ্লিষ্ট থানায় অজ্ঞাত আসামির নামে মামলা দায়ের করে এবং মামলার চুড়ান্ত রায় না হওয়া পর্যন্ত ঐ মামলার তদারকি করে যায়। এমন কি মামলার তদারকির জন্য ওই দেশের দূতাবাস নিজস্ব আইনজীবী নিয়োগ নিয়োগ দিয়ে থাকে।

    কিন্ত একমাত্র বাংলাদেশি প্রবাসীদের বেলায় সবকিছু উল্টো। যে কোন এলাকায় কোনো বাংলাদেশি নাগরিক হত্যাকাণ্ডের শিকার হলে স্থানীয় বাংলাদেশিরা চাঁদা তুলে লাশটা কোনরকমে দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করে।

    এ ক্ষেত্রে আমরা কোনদিন দেখিনি বাংলাদেশ কমিউনিটির কোনো নেতা একটি লাশের তদারকি করতে বা কমিউনিটি বাদী হয়ে মামলা করতে।

    বাংলাদেশ প্রশাসন যে কোনো প্রকারেই হোক দক্ষিণ আফ্রিকাস্থ অসহায় প্রবাসী বাংলাদেশির বিষয় নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার সরকারের সঙ্গে একটি শক্তিশালী চুক্তি করা এবং সরকারিভাবে আমদানি রপ্তানি করার জোরালো দাবি জানান দক্ষিণ আফ্রিকাস্থ সকল শ্রেণিরর প্রবাসী বাংলাদেশি ও হাইকমিশন।

    এসব ব্যবস্থা গ্রহণ করলে দক্ষিণ আফ্রিকাস্থ প্রবাসী বাংলাদেশিরা শান্তিতে থাকতে পারবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

    সূত্র: দেশে বিদেশ

    (Visited 7 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *