Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / ব্রেকিং নিউজ / ঢাবির ঘ-ইউনিটের ফল প্রকাশ, ফেল ৭৩ শতাংশ ।। songbadprotidinbd.com

ঢাবির ঘ-ইউনিটের ফল প্রকাশ, ফেল ৭৩ শতাংশ ।। songbadprotidinbd.com

  • ১৬-১০-২০১৮
  • image-46371-1539685454ঢাবি প্রতিনিধি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষের ‘ঘ’ ইউনিটের প্রথম বর্ষ সম্মান শ্রেণীর ভর্তি পরীক্ষার স্থগিত হওয়া ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এতে পাস করেছেন ২৬ দশমিক ২১ শতাংশ পরীক্ষার্থী, অর্থাৎ ৭৩ দশমিক ৭৯ শতাংশই ফেল।মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৩টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের কেন্দ্রীয় ভর্তি অফিসে উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান আনুষ্ঠানিকভাবে এ ফল প্রকাশ করেন।

    এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতর থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান প্রশাসনিক ভবনের কেদ্রীয় ভর্তি অফিসে (কক্ষ নং-২১৪) আনুষ্ঠানিকভাবে এই ফল প্রকাশ করবেন।

    গত ১২ অক্টোবর (শুক্রবার) ঘ ইউনিটর ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এরপরই অভিযোগ ওঠে প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে। সোমবার ফল প্রকাশের কথা থাকলেও তা স্থগিত করা হয়।

    সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, মাননীয় উপাচার্য দফতরের অ্যাসাইনমেন্ট অফিসারের পাঠানো ভুল তথ্যের জন্য ‘আগামীকাল ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে’ মর্মে সোমবার প্রেস বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়েছিল। উপাচার্য মহোদয়ের আদেশক্রমে এই প্রেস বিজ্ঞপ্তির কার্যক্রম স্থগিত করা হলো। অনাকাঙ্ক্ষিত এই ভুলের জন্য বিনয়ের সঙ্গে দুঃখ প্রকাশ করাও হয়েছে। ফল প্রকাশের বিষয়ে যথাসময়ে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হবে। গত ১২ অক্টোবর শুক্রবার ৮১টি কেন্দ্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু পরীক্ষা শুরু হওয়ের ৪৩ মিনিট আগে প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ ওঠে। সকাল ৯টা ১৭ মিনিটে অনেক পরীক্ষার্থীর হোয়াটস অ্যাপ ও ম্যাসেঞ্জারে সাদা কাগজে হাতেলেখা উত্তরপত্রসহ ১০০টি প্রশ্ন সম্বলিত ১৪ পৃষ্ঠার একটি প্রশ্নপত্র আসে। সাংবাদিকদের হাতেও আসে সেই প্রশ্নপত্র। ওই দিন অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্ন পত্রের সঙ্গে মেসেঞ্জারে আসা ৭২টি প্রশ্ন ও উত্তরের হুবহু মিল পাওয়া যায়। প্রাথমিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ অভিযোগ অস্বীকার করলেও এই ঘটনায় শুক্রবার রাতেই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সহউপচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে।

    সেই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন সোমবার সকালে দেওয়ার কথা থাকলেও এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তা দেওয়া হয়নি। তবে অনেকেই ‘ঘ’ ইউনিটে ফাঁস হওয়া প্রশ্নের পরীক্ষা বাতিল করে আবার পরীক্ষা নেয়ার দাবি জানান। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি।

    এদিকে হঠাৎ করেই জনসংযোগ দফতর থেকে ফল প্রকাশের সময় জানিয়ে ই-মেইল আসে ও পরে তা স্থগিত করার কথাও জানানো হয়।

    এ বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্ত কমিটি অন্যতম সদস্য সহকারী প্রক্টর অধ্যাপক মাকসুদুর রহমান বলেন, কিছুক্ষণের মধ্যেই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। উপচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত স্থগিত রেখেছেন।

    এর আগে সকালে প্রথম সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ফল প্রকাশের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হলে সে নিয়ে জানতে চাইলে ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যাপক সাদেকা হালিম বলেন, আমি তো কিছু জানি না, আমাকে কিছু জানানো হয়নি এখনো।

    তবে সাদেকা হালিম সংবাদকর্মীদের জানিয়ে দেন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের পক্ষ থেকে যে ফলাফল প্রস্তুত করা হয়েছে তিনি সেটা ভর্তি বিষয়ক অনলাইন কমিটির কাছে দিয়েছেন।

    (Visited 6 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *