Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / জাতীয় / সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য ১৮ হাজার ফ্ল্যাট ।। songbadprotidinbd.com

সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য ১৮ হাজার ফ্ল্যাট ।। songbadprotidinbd.com

  • ১৬-০৭-২০১৮
  • image-38113-1531745462নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসযোগ্য ও স্বাস্থ্যসম্মত আবাসনের উপর জোর দিয়েছেন। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহানগরীতে ২৩টি আবাসিক প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন আকারে প্রায় ১০ হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও ৮ হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণের কাজ চলছে। মোট ১৮ হাজার ফ্ল্যাটে আনুমানিক ১ লাখ নারী-পুরুষ বসবাস করতে পারবে।

    সরকারি জায়গায় ২০ তলা বিশিষ্ট বহুতল ভবন নির্মাণের মাধ্যমে ফ্ল্যাট বাড়িয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকার ব্যবস্থা করছে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়।

    এ ব্যাপারে সরকারের পরিকল্পনার কথা জানিয়ে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘আজিমপুরে সরকারি জায়গায় এক সময় ৯০০টি ফ্ল্যাট ছিল। সেখানে আমাদের সময়ে ফ্ল্যাটের সংখ্যা বাড়িয়ে দ্বিগুণ করা হয়। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্পষ্ট জানিয়ে দেন, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসন ৮ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৪০ শতাংশে উন্নীত করতে হবে। তার নির্দেশনায় (প্রধানমন্ত্রী) বহুতল ভবন বানিয়ে বহুমাত্রিক ব্যবহারের উদ্যোগ নিয়েছে মন্ত্রণালয়। নবনির্মিত ফ্ল্যাট আগের তুলনায় খোলামেলা ও সুযোগ-সুবিধা বেশি।’

    এসব আবাসন এলাকায় পুরনো ও জরাজীর্ণ ভবন ভেঙে হাঁটার পথ, পার্ক, খেলার মাঠ ও বাগান তৈরি করা হবে। সম্প্রতি আজিমপুরে সরকারি এসব আবাসন প্রকল্প উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী স্মৃতিচারণ করেন। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি আজিমপুর কলোনিতে ছিলেন তিনি। ছোট ভাই শেখ কামালকে সঙ্গে নিয়ে নৌকায় করে গোপালগঞ্জ থেকে ঢাকার আজিমপুর কলোনিতে এক আত্মীয়ের বাসায় উঠেন। তখন তাঁর বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কারাগারে ছিলেন।

    ইঞ্জিনিয়ার মন্ত্রী মোশাররফ জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে নতুন ও আধুনিক কোনো ধারণা বা প্রকল্প নিয়ে গেলেই তিনি সানন্দে সম্মতি দেন। একই সঙ্গে দ্রুত এসব প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য পরামর্শ দেন। ঢাকা ও চট্টগ্রামের মতো জনবহুল এলাকায় সরকারি চাকরিজীবীদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করা সত্যিই কঠিন কাজ। বহুতল ভবন নির্মাণ করে সে কঠিন কাজকে সহজ করার সাহস দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।

    সরকারের দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সরকারি কর্মচারীদের আবাসন কিভাবে বাড়ানো যায়, সে ব্যাপারে মনোযোগী হয়। প্রকল্পও গ্রহণ করে। কিন্তু পরবর্তীতে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর এসব প্রকল্প আর আলোর মুখ দেখেনি। মাঝখানে দু বছর সেনাশাসিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলেও এসব প্রকল্প গতি পায়নি। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর বিগত ১০ বছর ধরে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসন প্রকল্পের উপর জোর দিয়ে বাস্তবায়নের কাজ শুরু করেছে।

    (Visited 17 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *