Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / আন্তর্জাতিক / শুক্রবার মধ্যরাত থেকে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের ‘বাণিজ্য যুদ্ধ’ শুরু ।। songbadprotidinbd.com

শুক্রবার মধ্যরাত থেকে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের ‘বাণিজ্য যুদ্ধ’ শুরু ।। songbadprotidinbd.com

  • ০৬-০৭-২০১৮
  • 180817us-china-trade-warআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ  শুক্রবার মধ্যরাত থেকে শুরু হচ্ছে বিশ্বের প্রধান দুই অর্থনৈতিক শক্তি ইউএসএ এবং চীনের মধ্যকার ‘বাণিজ্য যুদ্ধের’ প্রভাব। ৬ জুলাই, শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় মধ্যরাতের পর থেকে ৩৪ বিলিয়ন ডলারের চীনা পণ্যের ওপর ২৫ শতাংশ মার্কিন শুল্ক কার্যকর হয়েছে। এর পরপরই চীন এক বার্তায় যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেছে, তারাও যেন পাটকেলের জন্য প্রস্তুত থাকে। যুক্তরাষ্ট্র এ সিদ্ধান্তের মাধ্যমে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু করেছে বলেও উল্লেখ করেছে চীন।

    চীন বলেছে, যুক্তরাষ্ট্র এ যুদ্ধ শুরু করেছে এবং চীন এ যুদ্ধের শেষ পর্যন্ত লড়াই করতে প্রস্তুত। চীনের জাতীয় স্বার্থ ও সাধারণ মানুষের স্বার্থেই চীনকে পাল্টা ব্যবস্থা নিতে হবে।

    ট্রাম্প প্রশাসন এ দফায় যেসব চীনা পণ্যের ওপর শুল্ক আরোপ করেছে, সেগুলোর মধ্যে শিল্প কারখানার যন্ত্রপাতি, চিকিৎসা সামগ্রী রয়েছে। চলতি গ্রীষ্মের শেষ দিকে চীনা পণ্যের ওপর আরও ১৬ বিলিয়ন ডলারের শুল্ক আরোপের কথাও ঘোষণা করে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র।

    এদিকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় দুটি অর্থনীতির দেশ এভাবে বাণিজ্যযুদ্ধে জড়িয়ে পড়ার প্রভাব পড়বে সারা বিশ্বে। চীন থেকে যুক্তরাষ্ট্রে পণ্য আমদানি-রপ্তানির সঙ্গে জড়িত বহু কোম্পানি এতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই যেসব মার্কিন কোম্পানির সঙ্গে চীনের ব্যবসা আছে, তারা বেশি উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে।

    আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স ইন চায়নার চেয়ারম্যান উইলিয়াম জ্যারিট বলেন, ‘চীনে বাণিজ্য করার ক্ষেত্রে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।’

    যুক্তরাষ্ট্র চীনা পণ্যের ওপর বাড়তি শুল্ক আরোপ করায় এবং চীনও একই মাত্রার প্রতিশোধের হুমকি দেওয়ায় যে প্রশ্নটি এখন সবচেয়ে বড় আকার ধারণ করেছে সেটি হচ্ছে, বেইজিং ও ওয়াশিংটনের এ দ্বন্দ্ব কোথায় গিয়ে ঠেকে।

    বাণিজ্য বিশ্লেষকরা বর্তমান পরিস্থিতিকে ভীতিকর ও সাধারণ মানুষের জন্য অকল্যাণমূলক বলে বর্ণনা করেছেন। এ পাল্টাপাল্টি শুল্ক আরোপের ফলে উভয় দেশের সাধারণ মানুষকে এখন পণ্যের বেশি দাম বেশি পরিশোধ করতে হবে। এর প্রভাব পড়বে সারা বিশ্বেও।

    চীনের প্রতিশোধের হুমকির ব্যাপারে ট্রাম্পও পাল্টা তোপ দেগেছেন। ট্রাম্প বলেছেন, চীন যদি পাল্টা ব্যবস্থা নেয়, তাহলে যুক্তরাষ্ট্র চীনা পণ্যের ওপর আরও বেশি শুল্ক আরোপ করবে। ট্রাম্প সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ‘চীনের ৫০০ বিলিয়ন ডলার পণ্যের ওপর যুক্তরাষ্ট্র শুল্ক বসানোর কথা বিবেচনা করবে।’

    ট্রাম্প এর আগে ৪৫০ বিলিয়ন ডলার চীনা পণ্যের ওপর শুল্ক বসানোর হুমকি দিয়েছিলেন। এবারের হুমকির মাত্রা আগের চাইতেও বড়।

    বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বড় ধরনের বাণিজ্য ঘাটতি আছে। অর্থাৎ চীন যুক্তরাষ্ট্রে যে পরিমাণ পণ্য রফতানি করে, যুক্তরাষ্ট্র তার চেয়ে অনেক কম পরিমাণ পণ্য চীনে রফতানি করে। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের অাগে থেকেই ট্রাম্প চীনের সঙ্গে এ বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে সরব ছিলেন এবং কথা দিয়েছিলেন তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে এ বাণিজ্য ঘাটতি কমাবেন। নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি অনুসারেই এখন তিনি সে লক্ষ্যে উদ্যোগ নিচ্ছেন, যদিও নানা কারণে ট্রাম্পের এ উদ্যোগ উল্টো আমেরিকার জন্য ক্ষতিসাধন করতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র বরাবরই চীনের বিরুদ্ধে মার্কিন কোম্পানিগুলোর মেধাস্বত্ব চুরি এবং কর ফাঁকির অভিযোগ করে আসছে। ট্রাম্পের আগের মার্কিন প্রশাসনগুলোও এ নিয়ে চীনকে বারবার হুঁশিয়ার করেছিল।

    (Visited 12 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *