Templates by BIGtheme NET
Home / ধর্ম / লাইলাতুল কদর মহিমান্বিত রাত ।। সংবাদ প্রতিদিন বিডি

লাইলাতুল কদর মহিমান্বিত রাত ।। সংবাদ প্রতিদিন বিডি

  • ১২-০৬-২০১৮
  • Lailatul-Kadar-Top20170622145313আজ মঙ্গলবার, পবিত্র মাহে রমজানের ২৬তম দিন। আর নাজাতের ষষ্ঠ দিন। রমজানের এই শেষ দশক গুরুত্বপূর্ণ হওয়ার মূল কারণ হলো শেষ দশকেই রয়েছে লাইলাতুল কদর বা মহিমান্বিত রাত। যে রাতে কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে। যে রাতের ইবাদত হাজার মাসের ইবাদত থেকে উত্তম। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘নিশ্চয়ই আমি কোরআন অবতীর্ণ করেছি লাইলাতুল কদরে। তুমি কি জানো লাইলাতুল কদর কী? লাইলাতুল কদর হলো হাজার মাসের চেয়েও উত্তম। এ রাতে ফেরেশতারা ও জিবরাইল সব বিষয় নিয়ে তাদের রবের নির্দেশে অবতীর্ণ হন। ফজরের উদয় পর্যন্ত শান্তি বর্ষিত হতে থাকে।’ (সুরা কদর : ১-৫)।

    ইমাম নখঈ (রহ.) বলেন, লাইলাতুল কদর এক হাজার রাত থেকে উত্তম হওয়ার অর্থ হলো, লাইলাতুল কদরের আমল এক হাজার মাসের আমল থেকে উত্তম। এক হাজার মাস হিসাব করলে ৮৩ বছর ৪ মাস দাঁড়ায়। এ থেকে এ কথা সুস্পষ্টভাবে বোঝা যাচ্ছে যে, লাইলাতুল কদর কত বেশি মর্যাদাবান! কত বেশি দামি! লাইলাতুল কদরের মর্যাদা ও ফজিলত সম্পর্কে রাসুল (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি ইমানের সঙ্গে সওয়াব প্রাপ্তির আশায় কদরের রাতে ইবাদত করল, তার অতীত জীবনের সব গোনাহ মাফ করে দেয়া হলো।’ (সহিহ বোখারি, হাদিস নং-১৮০২; সহিহ মুসলিম, হাদিস নং-১৮১৭)।

    প্রিয় পাঠক! লাইলাতুল কদর চেনার কিছু আলামতও রয়েছে। এসব আলামতের মধ্যে বিশুদ্ধ আলামত হলো, কদরের রাত শেষে যে সকাল আসবে, তার সূর্যোদয় হবে সাদা হয়ে কিরণহীন অবস্থায়। উবাই ইবনে কাব (রা.) থেকে এক বর্ণনায় এসেছে, ‘রাসুল (সা.) বলেন, আর তার আলামত হলো সেদিনকার সকালের সূর্যোদয় ঘটবে সাদা আকারে, যার কোনো কিরণ থাকবে না।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস নং-১৮২১)। অবশ্য এ আলামতটিও কদরের রাত অতিক্রান্ত হওয়ার পর সকাল বেলায় জানা যাবে। এর হেকমতও লাইলাতুল কদর অনুসন্ধানে বান্দাদের অধিক পরিশ্রমী করে তোলা এবং যারা এ রাতের ফজিলত পাওয়ার জন্য পরিশ্রম করেছে তাদের আনন্দিত করা।

    মোট কথা, লাইলাতুল কদরের মহান ফজিলতের রাতকে যথাসম্ভব পুরো রমজানেই তালাশ করা উচিত। অর্থাৎ রমজানের প্রত্যেকটি রাত যদি যথাযথ ইবাদত ও তওবা-ইস্তেগফারের মাধ্যমে অতিবাহিত করা হয় তবে লাইলাতুল কদর অবশ্যই নসিব হবে বলে দৃঢ় আশা করা যায়। তবে অন্তত ২৭ তারিখ অর্থাৎ ২৬ রমজান দিবাগত রাতের গুরুত্ব দেওয়া এবং পুরো রাত ইবাদত-বন্দেগিতে নিয়োজিত থাকা দরকার। আল্লাহ তায়ালা আমাদের রমজানের বাকি দিনগুলো বেশি বেশি চেষ্টা-সাধনা করে লাইলাতুল কদরে মর্যাদা ও ফজিলত হাসিল করার তৌফিক দান করুন। আমিন।

    (Visited 25 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *