Templates by BIGtheme NET
Home / সাক্ষাৎকার / ২০২১ সালের মধ্যে ৫ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি: বেসিস সভাপতি ।। songbadprotidinbd.com

২০২১ সালের মধ্যে ৫ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি: বেসিস সভাপতি ।। songbadprotidinbd.com

  • ২৩-০৪-২০১৮
  • almas-kabir-corporateবাংলাদেশ এসোসিয়েশন অফ সফটওয়্যার এন্ড ইনফরেমশন সার্ভিসেস (বেসিস) বাংলাদেশের সফটওয়্যার এবং তথ্য প্রযুক্তি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সমূহের একটি সংস্থা যা জাতীয়ভাবে সফটওয়্যার এবং তথ্যপ্রযুক্তির বিশ্ব বাজারে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করে।  বাংলাদেশের সফটওয়্যার ও আইটি খাতকে আরও প্রসারিত করাই বেসিসের মূল লক্ষ্য এবং এই লক্ষ্যকে সামনে রেখেই তাদের সকল কার্যক্রম পরিচালিত হয়। বর্তমানে বেসিস এর সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মেট্রোনেট বাংলাদেশ লি. এর সিইও সৈয়দ আলমাস কবীর। বেসিস নিয়ে তিনি খোলামেলা আলোচনা করেন সংবাদ প্রতিদিন বিডির প্রতিনিধির সাথে।

    বেসিসের অতীত স্মৃতি চারণ করে তিনি বলেন, বেসিস ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে এর সদস্য ছিলো মাত্র ১৭। বর্তমানে এর সদস্য সংখ্যা প্রায় এগারোশত। দিন দিন এর পরিধি যেমন বাড়ছে সেই সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে এর কার্যক্রম। বেসিসে সাধারন ও এসোসিয়েটস্ দুই ধরনের সদস্য হওয়ার সুযোগ রয়েছে। নতুনদের জন্যে এসোসিয়েটস্ সদস্য হওয়ার সুযোগ থাকলেও উভয় সদস্যদের সুবিধা একই রকম।

    বেসিসের লক্ষ উদ্দেশ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, বাংলাদেশের আইসিটি ও আইটিইএস সেক্টরকে বিশ্বমানের উপযোগী করে গড়ে তোলা সেই সাথে এখাত সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়িদের স্বার্থ রক্ষা করাই বেসিসের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য। সাথে সাথে সরকারের কাছ থেকে এখাত সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা আদায় করা। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে আমরা সরকারের সাথে আলোচনা করে ২০২৪ সাল পর্যন্ত ট্যাক্স হলিডে নিয়েছি। আইটি সংশ্লিষ্ট খাতগুলোতে কিভাবে আরো বেশি বিনিয়োগ বাড়ানো যায় সে সম্পর্কে সরকারের সাথে আলোচনা চলছে। অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে এখাতে থোক বরাদ্দের আবেদন জানানো হয়েছে। আইটি সংশ্লিষ্ট সব ধরণের সহায়তা দেয়া বেসিসের অন্যতম কাজ।

    বেসিসের বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে আলমাস কবীর বলেন, তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে ২০০৭ সালে বেসিস প্রথম প্রশিক্ষণ দিতে শুরু করে। আইটি খাতে দক্ষ জনবল তৈরির জন্যে বেসিস ইনস্টিটিউট টেকনোলজি এন্ড ম্যানেজমেন্ট (বিআইটিএম) প্রতিষ্ঠা করেছে। দক্ষ জনশক্তি তৈরিতে গুরুত্ব দিয়ে বেসিস ১০ লাখ দক্ষ জনশক্তি তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে। এ লক্ষ্য অর্জনে তিন বছরের মধ্যে বিনা মূল্যে ২৩ হাজার দক্ষ জনশক্তি তৈরি এবং তাঁদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবে বেসিস। ইতোমধ্যে ষোল হাজারের অধিক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। যাদের প্রায় সকলেই এখাতে বা ব্যক্তিগতভাবে কাজ করছেন। জনশক্তি তৈরির এই কাজকে এগিয়ে নিতে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি) অর্থায়নে পরিচালিত অর্থ মন্ত্রণালয়ের স্কিল ফর এমপ্লয়মেন্ট ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রামের (এসইআইপি) একটি অংশ বাস্তবায়ন করছে বেসিস। তাছাড়া বর্তমানে বেসিসের চব্বিশটি স্থায়ী কমিটি বিভিন্ন ইস্যুতে কাজ করে যাচ্ছে। বেসিসের সদস্যদের নিয়েই এসব কমিটি গঠন করা হয়ে থাকে।

    basis-corporate

    বেসিস সভাপতি হিসেবে বিভিন্ন কাজ হাতে নিয়েছেন সৈয়দ আলমাস কবীর। তিনি বলেন, আমি সভাপতির দায়িত্ব নেয়ার পর প্রথমেই বেসিসের সদস্যদেরকে অনলাইন ভিত্তিক সেবা পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করি। বিভিন্ন সমস্যার জন্য অনলাইনে আবেদনের মাধ্যমে সকল ধরণের সেবা পাওয়া যাবে। এছাড়া দেশে বিদেশে অনলাইনের মাধ্যমে পেমেন্ট করার ব্যবস্থা নিয়েছি। কিছু দিনের মধ্যেই এসব সেবা পাওয়া যাবে। বেসিসের ওয়েবসাইট বর্তমান সময়ের সাথে সমন্বয় করে যোগোপযোগী করা হবে। যাতে সকল সদস্যদের তথ্যসহ ব্লগ সুবিধাও রাখা হবে।এছাড়া ই-গর্ভনেন্স সেল প্রতিষ্ঠার মাধ্যম্যে সরকারি সেবা সমূহ বেসিস সদস্যদের মাধ্যমে দেয়া বিষয়টি নিশ্চিত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

    বেসিসের সমস্যার কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, বেসিস সদস্যদের অর্থায়ন একটি বড় সমস্যা। ব্যাংক লোন নিতে গিয়ে বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সন্মুখীন হতে হয়। এর জন্যে সফটওয়ারের আইপি ভ্যালুয়েশন নির্ধারণ করতে হবে। এছাড়া ইইএফ ফান্ড বন্ধ থাকায় বিনিয়োগে সমস্যা দেখা যাচ্ছে। এজন্য অর্থ মন্ত্রাণলয়ের সাথে আলোচনা চলছে।

    বেসিস নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানিয়ে আলমাস কবীর বলেন, এবছরের মধ্যে আমাদের ১ বিলিয়ন ডলার রপ্তানির উদ্যোগ নিয়েছি। ২০২১ সালে এটা ৫ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করার লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। বাংলাদেশকে উন্নত দেশের পর্যায়ে নেয়ার অংশ হিসেবে  ২০৪১ সালের মধ্যে ৫০০ বিলিয়ন ডলার রপ্তানির লক্ষ নির্ধারণ করা হয়েছ। এর জন্যে প্রথমত দক্ষ জনশক্তির দরকার, দ্বিতীয়ত সার্বিক অবকাঠামোগত উন্নত পরিবেশ থাকা দরকার।

    (Visited 15 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *