Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / ব্রেকিং নিউজ / ঢাকায় সমাবেশের অনুমতি পায়নি বিএনপি ।। songbadprotidinbd.com

ঢাকায় সমাবেশের অনুমতি পায়নি বিএনপি ।। songbadprotidinbd.com

  • ০৫-০১-২০১৮
  • image-119482-1515090900সংবাদ প্রতিদিন বিডি প্রতিবেদকঃ  আজ ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় নির্বাচনের চতুর্থ বার্ষিকীতে ঢাকায় কোথাও সমাবেশের অনুমতি পায়নি বিএনপি। এ অবস্থায় কোনো সংঘাতে না গিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে নতুন কর্মসূচি আজ বেলা ১১টায় ঘোষণা করা হবে। তবে রাজধানীতে সমাবেশের অনুমতি না পেলেও সংঘাত এড়িয়ে বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ঢাকার বাইরে কালোপতাকা হাতে ব্যাপক শোডাউনের প্রস্তুতি নিয়েছে বলে জানানো হয়। নেতারা জানান, এ অবস্থায় মহাজোট সরকারের চতুর্থ বছরেও ঢাকায় সমাবেশ করার অনুমতি পেল না বিএনপি। ২০১৭ সালের ৫ জানুয়ারিও সমাবেশ করতে বিএনপিকে অনুমতি দেওয়া হয়নি। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি একতরফা নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রতিবাদে প্রতিবছর এই দিনটিকে গণতন্ত্র হত্যা দিবস হিসেবে পালন করে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট।

    এদিকে ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে জামায়াতে ইসলামী রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি করবে বলে ঘোষণা দিয়েছে। জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা এটিএম মাছুম গতকাল এক বিবৃতিতে বলেন, ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ উপলক্ষে দেশে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের জন্য জামায়াতের সব শাখা ও দেশবাসীর প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি।

    বিএনপি নেতারা জানান, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাছে প্রথমে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, পরে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে সমাবেশের অনুমতি চাওয়া হয়। উল্লিখিত স্থানে কোথাও সমাবেশের অনুমতি না দিয়ে ডিএমপির পক্ষ থেকে বিএনপিকে বিকল্প দুটি প্রস্তাব দেওয়া হয়। একটি হচ্ছে, আজ ৫ জানুয়ারি কর্মসূচি করতে চাইলে ঘরোয়াভাবে করতে হবে। দ্বিতীয়টি হচ্ছে সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ করতে চাইলে জানুয়ারির মাসের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। গতকাল বিকাল ৩টায় চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ডিএমপিতে গেলে পুলিশের পক্ষ থেকে উল্লিখিত প্রস্তাব দেওয়া হয়। এ প্রসঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম জানান, আমিসহ চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূঁইয়া ও প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী ডিএমপিতে গিয়েছিলাম। সমাবেশের অনুমতির বিষয়ে জানতেই আমরা গিয়েছিলাম। ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি বলেছেন, ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে বিএনপি চাইলে ইনডোরে যে কোনো সময় কর্মসূচি পালন করতে পারবে। তবে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কর্মসূচি পালন করতে হলে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত বিএনপিকে অপেক্ষা করতে হবে। এখন দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে ডিএমপিকে জানানোর কথা বলে এসেছি। জানতে চাইলে তিনি বলেন, দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে আলোচনা করে আজ নতুন কর্মসূচির বিষয়ে গণমাধ্যমকে জানানো হবে।

    বিএনপি নেতারা জানান, ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবসে জেলা, মহানগর এবং উপজেলায় কালো পতাকা মিছিল কর্মসূচি ব্যাপকভাবে করা হবে। এ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে কোনো সংঘাতে না জড়াতে বিএনপি চেয়ারপারসন সিনিয়র নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন। এই বার্তা তৃণমূল পর্যায়ে ইতোমধ্যে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। তবে জানা গেছে, সমাবেশের অনুমতি না দেওয়ার প্রতিবাদে আজ বা কাল রাজধানীর থানা-ওয়ার্ডগুলোয় কালো পতাকা হাতে বিক্ষোভ কর্মসূচি করতে পারে। এ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ছিল একতরফা। এখানে ১৫৪ আসনে কোনো ভোট হয়নি। যেসব আসনে ভোট হয়েছে, সেখানেও শতকরা ৫ ভাগ মানুষ ভোটকেন্দ্রে যায়নি। এটা কোনো নির্বাচনই নয়। এটা হচ্ছে গণতন্ত্র হত্যার দিন। এবার আমরা দিনটিতে কর্মসূচি করব। তবে এমন কোনো কর্মসূচি করব না, যেন সাধারণ মানুষের কষ্টের কারণ হয়।

    বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, আগামী নির্বাচনকে টার্গেট করে সংঘাত এড়িয়ে ঢাকার বাইরেও ঘোষিত কর্মসূচি সফল করতে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি সংসদীয় আসনে এ কর্মসূচি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি পুলিশি অনুমতি না পেলেও সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে। ৫ জানুয়ারি বরিশাল, রাজশাহী, সিলেট, খুলনা মহানগরীতে কালো পতাকা হাতে বিএনপি সমাবেশ করবে বলে জানিয়েছেন নেতারা। বরিশাল মহানগর বিএনপির সভাপতি মজিবুর রহমান সরোয়ার বলেন, ঘোষিত কালোপতাকা মিছিল-সমাবেশ শান্তিপূর্ণভাবে সর্বোচ্চ জমায়েত ঘটিয়ে কর্মসূচি সফল করতে কেন্দ্র থেকে আমাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ভোটারবিহীন অবৈধ আওয়ামী লীগ সরকার এই কর্মসূচি বানচাল করতে বিএনপি, ছাত্রদল, যুবদলসহ অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের ওপর গ্রেপ্তারসহ পুলিশি নির্যাতন বেড়ে গেছে। এ অবস্থায় বিএনপি নেতাকর্মীরা ধৈর্য ধারণ করে কৌশলে কর্মসূচি সফল করবে।

    বিএনপি নেতারা মনে করেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন একটি বিতর্কিত নির্বাচন। ক্ষমতায় টিকে থাকতেই সংবিধান সংশোধন করে দলীয় সরকারের অধীনে একতরফা এ নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ।

    (Visited 14 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *