Templates by BIGtheme NET
Home / ফেনী / ডিএনসিসি উপনির্বাচন : আ;লীগের প্রার্থী হিসেবে আলাউদ্দিন নাসিমের নাম আলোচিত ।। songbadprotidinbd.com

ডিএনসিসি উপনির্বাচন : আ;লীগের প্রার্থী হিসেবে আলাউদ্দিন নাসিমের নাম আলোচিত ।। songbadprotidinbd.com

  • ০৮-১২-২০১৭
  • CON-00008299সংবাদ প্রতিদিন বিডি ডেস্কঃ  আনিসুল হকের মৃত্যুতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদ শূন্য ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। প্রজ্ঞাপন জারির ৯০ দিনের মধ্যে ডিএনসিসি মেয়র পদে উপনির্বাচন দিতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। সে হিসাবে ১ ডিসেম্বর থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি এই সময়ের মধ্যে ভোট আয়োজন করতে হবে। এ অবস্থায় উত্তর সিটির উপনির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হিসেবে বড় দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি থেকে টিকিট পাচ্ছেন কারা, কে মনোনয়ন পেলে দলের জয়ের পাল্লা ভারী হবে—তা নিয়ে এরই মধ্যে দলগুলোর ভেতরে আলোচনা-বিশ্লেষণ শুরু হয়ে গেছে। শক্তভাবে আলোচনায় এসেছে আওয়ামী লীগের কঠিন দুঃসময় শেখ হাসিনা ও দলের প্রশ্নে আনুগত্যের পরীক্ষায় বারবার উত্তীর্ণ আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিমের নাম। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের উপনির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হিসেবে আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরীর ভোট করার খবরে দলের ভিতরে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরে ইতিবাচক সাড়া পড়েছে।

    কারণ হিসেবে জানা গেছে, কর্মীরা তাকে দলের পরীক্ষিত এবং দুঃসময়ে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর সহযোদ্ধা হিসেবেই বিবেচনা করছেন। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে আলাউদ্দিন নাসিমের নাম বিভিন্ন মহলে আলোচিত হচ্ছে। প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের স্ত্রী রুবানা হক ও ছেলে নাভিদুল হক মনোনয়ন না পেলে আলাউদ্দিন নাসিমের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি বলে মনে করছে আওয়ামী লীগের বহু নেতাকর্মী। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এর সর্বস্তরের জনগনের মাঝে এই আলোচনায় আলাউদ্দিন নাসিমের নাম সবার আগে।

    আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের পরীক্ষিত এই নেতার প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনায় আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

    চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য আলাউদ্দিন নাসিম ১৯৮৬ সালে বিসিএস প্রশাসন সার্ভিসে যোগ দেন। ২১ বছর রাষ্ট্র ক্ষমতার বাইরে থেকে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে আলাউদ্দিন নাসিম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রটোকল কর্মকর্তা পদে নিযুক্ত হন। সেই মেয়াদে শেখ হাসিনা ২০০১ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। এই পুরোটা সময় আলাউদ্দিন নাসিম প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল কর্মকর্তা ছিলেন।

    ২০০১ সালে শেখ হাসিনা জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা হলে তাঁর এপিএস হন আলাউদ্দিন নাসিম। তিনি আলোচিত এক-এগারোর সময়ে আওয়ামী লীগের পক্ষে সাহসী ভূমিকা রাখেন।

    ২০০৯ সালে সরকারি চাকরির ইতি টানেন আলাউদ্দিন নাসিম। তিনি সেই সময়ে উপসচিব হিসেবে প্রশাসন ক্যাডার থেকে পদত্যাগ করে অবসরে যান। বর্তমানে তিনি ব্যবসা করছেন।
    আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মী বলছে, সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন একজন নেতা নাসিম। তিনি বিগত চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর নির্বাচন সমন্বয়ে কাজ করেছেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্যও ছিলেন নাসিম।

    দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে নোয়াখালী অঞ্চলের একটি বিশেষ ভোটব্যাংক রয়েছে। সদ্যঃপ্রয়াত মেয়র আনিসুল হকও ছিলেন নোয়াখালী অঞ্চলের। আলাউদ্দিন নাসিমও একই অঞ্চলের হওয়ায় উপনির্বাচনে তাঁকে প্রার্থী হিসেবে দেখতে চাইছেন নোয়াখালীর ভোটাররা। এ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে দেখছে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ও। কারণ গত নির্বাচনে লড়া বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়ালও নোয়াখালী অঞ্চলের। এই উপনির্বাচনেও তাবিথের প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। ফলে নোয়াখালী অঞ্চলের ভোটব্যাংকে ভাগ বসাতে চাইলে আলাউদ্দিন নাসিমই হবেন আওয়ামী লীগের জন্য যোগ্য প্রার্থী। ফেনী-কুমিল্লা-নোয়াখালী ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের বিশাল ভোটার গোষ্ঠী ও ওই অঞ্চলের রাজনীতিতে প্রভাব থাকার কারণেও প্রার্থী বিবেচনায় জোর আলোচনায় রয়েছেন আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম। 

    এ বিষয়ে জানতে চাইলে আলাউদ্দিন চৌধুরী নাসিম বলেন, ‘মনোনয়ন নিয়ে আমাদের পর্যায় থেকে মন্তব্য করার সুযোগ নেই। নেত্রী যাঁকে মনোনয়ন দেবেন, সবাই মিলে সেই সিদ্ধান্ত এগিয়ে নিয়ে যাওয়াটাই আমাদের দায়িত্ব। আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসেবে আমরা সেই দায়িত্ব পালন করব। ’

    (Visited 222 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *