Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / সারাবাংলা / খুলনা / চুয়াডাঙ্গা-১আসনে নৌকার মাঝি হতে চলেছেন দিলীপ কুমার আগরওয়ালা ।। Songbad Protidin BD

চুয়াডাঙ্গা-১আসনে নৌকার মাঝি হতে চলেছেন দিলীপ কুমার আগরওয়ালা ।। Songbad Protidin BD

  • ২৩-১০-২০১৭
  • 21462542_10214306378799089_1537518509977485198_n (1)আব্দুর রহমান(জসিম),চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি :-চুয়াডাঙ্গা-১ (চুয়াডাঙ্গা সদর ও আলমডাঙ্গা) আসনে সঠিক নেতৃত্বের অভাবে দেশের শীর্ষ রাজনৈতিক দল ও এর সহযোগী সংগঠনে চলছে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব ও কোন্দল। দীর্ঘ তিন দশকের বেশি সময় ধরে চলে আসা আওয়ামী লীগ বিরোধী বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বে শোষণ, বঞ্ছনা আর নিপীড়ন ছিল মানুষের নিত্যসঙ্গী। নবম ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে বর্তমান সরকার দলীয় মনোনীত প্রার্থী নির্বাচিত হলেও তৃণমূলের দলীয় নেতাকর্মীদের সুসংগঠিত করার ক্ষেত্রে রয়েছে ব্যর্থতার গ্লানি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে দেশ যখন উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে যাচ্ছে, তখনো চুয়াডাঙ্গায় উন্নয়নের ছোঁয়া না লাগায় নেতাকর্মীরা হতাশ। দিশেহারা হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী। আর ভোটাররাও ক্ষুব্ধ ও অতিষ্ঠ। এমন পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব নতুন প্রার্থীর সন্ধানে খোঁজখবর নিচ্ছেন। ঠিক তখনই কৃষি ও শিল্পনির্ভর এলাকা চুয়াডাঙ্গার সর্বস্তরের মানুষ চাচ্ছেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে চুয়াডাঙ্গারই কৃতী সন্তান, সেরা করদাতা ও সফল ব্যবসায়ী উদ্যোক্তা দিলীপ কুমার আগরওয়ালাকে।

    আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়েও আভাস পাওয়া গেছে, প্রাথমিক জরিপে জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতায় এগিয়ে আছেন আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য এমপি প্রার্থীর তালিকায় চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে শীর্ষ ব্যবসায়ী সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক, বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা। এ আসনটিতে আওয়ামী লীগের জয় নিশ্চিত করতে তাকে মনোনয়ন দেয়ার বিষয়টি ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা।
    গুলশানে নিজ ব্যবসায়িক কার্যালয়ে স্বনামধন্য ব্যবসায়ী নেতা ও ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের কর্ণধার দিলীপ কুমার আগরওয়ালা একান্ত আলাপচারিতায় এ প্রতিবেদককে বলেন, নতুন নেতৃত্বে এলাকাবাসীর অনুরোধে উন্নয়নের স্বার্থে চুয়াডাঙ্গা-১ (চুয়াডাঙ্গা সদর ও আলমডাঙ্গা) আসনে জাতীয় সংসদ সদস্য পদে প্রার্থী হতে আমার আপত্তি নেই। আমি চাই চুয়াডাঙ্গার ঐতিহ্য ফিরে আসুক। কোন্দল আর হানাহানি সমাপ্তি চাই। চাই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য উত্তরসূরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য ও দক্ষ নেতৃত্বে চুয়াডাঙ্গার ব্যাপক উন্নয়ন। বাংলাদেশের ব্যবসায়ী সমাজের প্রতিনিধি হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি আমাকে মনোনয়ন দেন তবে আমি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব। আমি শতভাগ আশাবাদী আমি ব্যবসায়ে যেমন সফল হয়েছি সুযোগ পেলে রাজনীতিতেও তেমনি সফল হব। ব্যবসায়ীরা অনেক ক্ষেত্রেই রাজনীতিতেও সফল। তার জ্বলন্ত উদাহরণ ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে মেয়র আনিসুল হক তিনিও একটা সময় এফবিসিসিআই’র সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন।
    জর্জরিত শিক্ষাব্যবস্থায় ডিজিটাল ছোঁয়া লাগানোর পাশাপাশি শিক্ষার মান উন্নয়ন। আইটি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার ব্যবস্থা করা। আলমডাঙ্গা উপজেলায় কুমারী ভেটেরিনারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে ১৫ জেলার শিক্ষার্থী অংশ নেন। আজও কেউ প্রস্তাব না করলেও পূর্ণাঙ্গ ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হওয়া উচিত। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শ্রেণিকক্ষে বৈদ্যুতিক ফ্যান নেই, নেই মিড ডে মিল এর ব্যবস্থা। জরাজীর্ণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উন্নয়নে কারো নজর নেই। ব্যক্তিগত উদ্যোগে মিড ডে মিল ব্যবস্থাসহ শিক্ষার উন্নয়নে কিছু কাজ করেছি। স্বাস্থ্য শিক্ষায় একটি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা অপরিহার্য হলেও সেদিকে কারো খেয়াল নেই। হাসপাতাল ও ক্লিনিকসহ স্বাস্থ্য সেবার উন্নয়ন দরকার। সংবিধানে শিক্ষা, চিকিৎসা ও খাদ্য নিশ্চিয়তা প্রদানে মৌলিক অধিকার থেকে এলাকাবাসী বঞ্চিত হোক তা কখনো চাই না।
    চুয়াডাঙ্গায় পর পর তিনবার সর্বোচ্চ করদাতা হিসেবে সরকারের স্বীকৃতিপ্রাপ্ত দিলীপ কুমার আগরওয়ালা বলেন, তরুণ-তরুণীদের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে নতুন কলকারখানা স্থাপন করা দরকার। বিশেষ করে বিশ্বের বৃহৎ দর্শনা কেরু অ্যান্ড কোম্পানি চিনিকলটিতে উৎপাদন ঠিকভাবে না হওয়ায় মাড়াই মৌসুমের আগেই বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। এ অবস্থার অবসান হওয়া উচিত। তিনি বলেন, সঠিক নেতৃত্বের অভাবে জীবননগর উপজেলার দৌলতগঞ্জ-ভারতের মধ্যকার স্থলবন্দর হচ্ছে না। চলাচলের অনুপযোগী ও ভাঙা রাস্তা সংস্কার হচ্ছে না। সড়কগুলো সংস্কার জরুরি। রেলপথেরও অবস্থাও তেমন ভালো নেই। অথচ দর্শনায় রয়েছে বাংলাদেশ-ভারত যাওয়ার আর্ন্তজাতিক রেলস্টেশন ও রেলইয়ার্ড। ভারতের সঙ্গে রেল যোগাযোগ থাকায় সেখানে একটি রেলওয়ে বন্দর হতে পারে। জয়নগরে একটি চেকপোস্ট থাকলেও ব্যাংক না থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের।
    সফল এই উদ্যোক্তা জানান, কৃষিনির্ভর এ এলাকার উন্নয়নে কারো দৃষ্টি নেই। কৃষিপণ্য এলাকার চাহিদা পূরণ করে রাজধানী ঢাকাসহ সারা বিশ্বে কিভাবে বিপণন করা যায়, তার উদ্যোগ পর্যন্ত নেই। কৃষিসহ সব ক্ষেত্রে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে উন্নয়ন চান এলাকার মানুষ। ##
    সংবাদ প্রতিদিন বিডি /  আব্দুর রহমান(জসিম)  চুয়াডাঙ্গা
    (Visited 961 times, 1 visits today)

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *