Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / লাইফস্টাইল / রান্নাঘরের কিছু সমস্যা ও সমাধানের উপায় – Songbad Protidin BD

রান্নাঘরের কিছু সমস্যা ও সমাধানের উপায় – Songbad Protidin BD

  • ০৭-০৭-২০১৭
  • image-40970 (1)লাইফস্টাইল ডেস্ক: একটি বাড়িতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো রান্নাঘর। কারণ এই রান্নাঘর আমাদের প্রতিদিনের বেঁচে থাকার রসদ জোগায়। ঠিক সময় মতো খাবার না পেলে যেন জীবনের বাকি সবটাই মিথ্যে। তবে রান্নাঘরের কাজ কিন্তু খুব সহজ নয়। সকালবেলার গরম চা থেকে রাতের ডিনার পর্যন্ত হাজার একটা ঝামেলা লেগেই থাকে। কিন্তু জানেন কি কিছু উপায় মেনে চললে সহজেই এই রান্নাঘরের সব ঝামেলা থেকে রেহাই পাবেন। রইলো সমাধানের উপায়-

    কলা: একসঙ্গে অনেক কলা কিনলেই বেশিদিন রাখা যায় না। খুব সহজেই পচে যায় কলা। এই সমস্যা সমাধানে তাই কলার ছড়া একসঙ্গে রাখুন। ছড়া থেকে আলাদা করে ফেললে খুব তাড়াতাড়ি পেকে কলা পচে যাবে।
    পেঁয়াজ: পেঁয়াজ কাটার সময় তা থেকে প্রোপানেথিওল সালফার অক্সাইড নামে এক ধরনের গ্যাস বের হয়। যার কারণে এটা কাটার সময় কেঁদেকেটে একসা হতে হয়। এই সমস্যাকে আজ বলুন গুড বাই। খোসা ছাড়িয়ে কিছুক্ষণ জলে ডুবিয়ে রাখুন পেঁয়াজ। তারপর কাটুন। দেখবেন আর কাঁদতে হবে না।
    প্যানকেক: সাধারণত প্যানকেক খুব বেশিদিন ভালো থাকে না, নষ্ট হয়ে যায়। তবে এয়ার টাইট প্লাস্টিকের ব্যাগে সংরক্ষণ করলে প্যানকেক অনেক দিন ভাল রাখতে পারবেন।
    পোড়া: রান্নাঘরে কাজ করতে করতে অনেক সময় হাত পুড়ে যায় বা হাতে ও মুখে আগুনের ছ্যাকা লাগে। সেখানে ফোস্কা পড়ে। তবে ত্বক পুড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেই জায়গায় কাঁচা পেঁয়াজের রস লাগালে ফোস্কা পড়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।
    কফি: অনেকেই বেশি করে কফি কিনে রাখেন ঘরে। আর এই কফি অনেক দিন পুরনো হয়ে গেলে জমে যায়। পরবর্তীতে এটা ফেলে দিতে হয়। কিন্তু ফেলে না দিয়ে জমাট কফির মধ্যে গরম জল বা দুধ দিয়ে আবারো কাজে লাগাতে পারেন সেই কফি।
    চা পাতা: ড্রেনে ফেলে নষ্ট করবেন না চা পাতা। ব্যবহার করা চা পাতা বাগানের গাছে দিন। গাছের পুষ্টি হবে।
    মধু: অনেক পুরনো হয়ে গেলে অনেক সময় জমাট বেঁধে যায় মধু। ফেলে না দিয়ে মধুর শিশিটি গরম জলে ফোটান। আবার তরল হয়ে যাবে মধু।
    সতেজ সবজি: শাকসব্জি খুব তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায়। শাকসব্জি সতেজ রাখতে আইস কিউবের ট্রের মধ্যে কিছুটা ওলিভ ওয়েল দিয়ে সংরক্ষণ করুন।
    পচা ডিম: ডিম কোনটা খারাপ আর কোনটা ভাল তা বাইরে থেকে দেখে বোঝা যায় না। এক পাত্র জলের মধ্যে সব ডিমগুলো ভিজিয়ে দিন। ডিম খারাপ হলে জলের ওপর ভেসে উঠবে।
    কাঁচা মরিচ: প্রচণ্ড ঝালে প্রাণ যায় যায় হলেও ভাতের পাতে কাঁচা মরিচ ছাড়তে পারেন না? কাঁচা মরিচ মাঝখান থেকে কেটে বীজ বের করে নুনে ডুবিয়ে খান। মরিচ খাওয়াও হল অথচ ঝালও লাগল না।
    গলা ধরা: কথায় আছে, ‘ওল খেও না ধরবে গলা’। কিন্তু ভুল করে ওল খেয়ে ফেললেও কুছ পরোয়া নেহি। গলা ধরার আগেই এক টুকরো পাতি লেবুর রস খেয়ে নিন।
    মরিচের রস: কাঁচা মরিচ কাঁটার সময় মাঝে মধ্যে এর রস চোখে লেগে যায়। আর একবার মরিচের রস চোখে গেলে ভয়ানক সমস্যায় পড়তে হয়। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চোখে মাথার চুল আলতো করে ঘষুণ। দেখবেন চোখের জ্বালা কমে গেছে।
    আদা: ছুরি বা বঁটি দিয়ে আদার খোসা ছাড়াতে বেশ বেগ পেতে হয়। চামচ দিয়ে আদার খোসা ছাড়িয়ে দেখুন। অনেক সহজেই কাজ হবে।
    ক্রিসপি ফ্রাই: রেস্তরাঁয় গিয়ে যে ক্রিসপি পটাটো ফ্রাই খেতে কার না ভাললাগে? কিন্তু জানেন কি খুব সহজে বাড়িতেও হতে পারে ক্রিসপি ফ্রাই। আলুর খোসা ছাড়িয়ে ময়দা বা কর্ন পাউডার দিয়ে মাখিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ। তারপর ডিপ ফ্রাই করুন। ক্রিসপি পটাটো ফ্রাই রেডি।

     

    (Visited 20 times, 1 visits today)

    আরও সংবাদ

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *