Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / Slide Show / ‘হাসিনা আন্টি, আমার পাপাকে ফিরিয়ে দিন’

‘হাসিনা আন্টি, আমার পাপাকে ফিরিয়ে দিন’

  • ২৯-০৬-২০১৬
  • পিতার স্মৃতি নিয়ে অপেক্ষা করছে পুত্র, বাবা তুমি কবে আসবে। বাবা আর ফিরে আসে না। কবে আসবে কিংবা আদৌ আসবে কিনা তাও জানে না সে। অপেক্ষমান নিষ্পাপ চোখ দুটি প্রতিদিনই বাবার বাসায় ফেরার পথের দিকে তাকিয়ে থাকে। সে জানেনা, কবে ফিরবে তারা বাবা। দিন যায়, মাস যায়, অপেক্ষায় প্রহর যেন শেষ হয় না। শিশুপুত্র ফাহাদের মতো এরকম অপেক্ষায় থেকে থেকে দিনাতিপাত করছে গুম হওয়া অথবা নিখোঁজ হওয়া ব্যক্তির স্বজনদের পরিবারগুলো।

    কিন্তু বাবাকে ফিরে পেতে এবার হাসিনা (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) আন্টির কাছে আকুল আবেদন জানিয়েছে ৩৩ নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি চঞ্চলের শিশুপুত্র আহাদ। আসছে ঈদেই সে তার বাবাকে ফিরে পেতে চায়।

    প্রধানমন্ত্রীকে ‘আন্টি’ সম্বোধন করে তার কাছে নিষ্পাপ এ শিশুটির আকুল আবেদন, ‘হাসিনা আন্টি, আমার পাপাকে ফিরিয়ে দিন। পাপার সাথে ঈদ কবর। পাপা আমাকে নতুন জামা কিনে দেবে।’

    বুধবার (২৯ জুন) সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশানের লংবিচ হোটেলে এক ইফতার মাহফিলে এমন আকুতি জানায় পিতৃহারা শিশু আহাদ। বিগত আন্দোলনে বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের গুম ও খুন হওয়া নেতাকর্মীদের পরিবারের সম্মানে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এ ইফতার মাহফিলের আয়োজন করেন।

    আহাদ বলে, ‘পাপা বাসায় ফিরে আমাকে ঈদের জামা কিনে দিবে, পাপা আমাকে স্কুলে নিয়ে যাবে।’

    গুম হওয়া বিমানবন্দর থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন মুন্নার বাবা মো. শামসুদ্দিন বলেন, ‘২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির প্রহসনের নির্বাচন না হলে এই সরকার ক্ষমতায় যেতে পারত না। তাই নির্বিঘ্নে নির্বাচন করার জন্য তারা বিএনপি ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের গুম করেছে এবং করছে।’

    এ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, ‘যাদেরকে গুম করা হয়েছে তাদের মায়েদের চোখের পানিতে আল্লাহর আরশ কাঁপছে। তাদের এ চোখের পানি বৃথা যেতে পারে না। মহান আল্লাহ নিশ্চয় এর বিচার করবে।’

    এ সময় গুম-খুনের শিকার নেতাকর্মীদের স্বজনদের নিয়ে ইফতার অনুষ্ঠান করার জন্য বিএনপির চেয়ারপারসনকে ধন্যবাদ জানান শামসুদ্দিন।

    গুম হওয়া বংশাল থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক পারভেজ হোসেনের ছোট্ট মেয়ে হৃদি হোসেন বলে, ‘বাবার ছবি গলায় ঝুলিয়ে চলতে মন চায় না, ভালও লাগে না। ইচ্ছা করে বাবার হাত ধরে হাঁটতে। বাবাকে নিয়ে ঈদ করতে চাই। আমার বাবাকে ফিরিয়ে দিন।’

    নিষ্পাপ হৃদি ও আহাদের এমন আবেগঘন কথা ইফতার মাহফিলে উপস্থিত সবার হৃদয় ছুঁয়ে যায়। এ সময় সাংবাদিকসহ তাদের অনেকেই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি। অশ্রুসিক্ত হয়ে পড়েন তারা। বাদ যাননি উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীরাও।

    ইফতার মাহফিলে বিএনপির বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে গুম-খুনের শিকার ঢাকা ও এর আশপাশের ৪০টি পরিবারের স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে তাদের হাতে ঈদ উপহার সামগ্রী ও আর্থিক সহায়তা তুলে দেন বেগম জিয়া।

    এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস; যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল, শরিফুল আলম।

    এছাড়া আরো ছিলেন- ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব আহসান, সিনিয়র সহ-সভাপতি মামুনুর রশিদ মামুন, সহ-সভাপতি নাজমুল হাসান, জয়দেব জয়; সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি জহির উদ্দিন তুহিন, পূর্বের সভাপতি খন্দকার এনামুল হক এনাম ও সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন মানিক, কেন্দ্রীয় ছাত্রদল নেতা মামুন খান, সাবেক সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আমিরুজ্জামান খান শিমুল ও গুম হওয়ার পর ফিরে আসা ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আনিসুর রহমান তালুকদার খোকন প্রমুখ।

    (Visited 11 times, 1 visits today)

    আরও সংবাদ

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *