Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / সারাবাংলা / চট্টগ্রাম / ২০০ বাড়িঘরে আগুন, পুড়ে মারা গেছেন চাকমা নারী – Songbad Protidin BD

২০০ বাড়িঘরে আগুন, পুড়ে মারা গেছেন চাকমা নারী – Songbad Protidin BD

  • ০২-০৬-২০১৭
  • pahara-homeরাঙ্গামাটি প্রতিনিধিঃ  স্থানীয় এক যুবলীগ নেতার লাশ উদ্ধারের জেরে রাঙ্গামাটির লংগদু উপজেলায় পাহাড়িদের বাড়িঘরে আগুন লাগানো হয়েছে। ওই যুবলীগ নেতাকে পাহাড়িরা হত্যা করেছে এমন অভিযোগ ওঠার পর সংগঠনের উত্তেজিত নেতাকর্মীরা অগ্নিসংযোগ করেছে বলে আদিবাসীদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে আগুন লাগানোর ঘটনা ঘটে। আগুনে পুড়ে গুণমালা চাকমা (৭৫) এক আদিবাসী নারী মারা গেছেন।

    পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ওই এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। পরবর্তী আদেশ দেওয়া না পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

    লংগদু উপজেলার আটারকছড়ার ইউপি চেয়ারম্যান মঙ্গল কান্তি চাকমা জানান, বিক্ষোভ মিছিলের সময় প্রশাসনের আশ্বাস পেয়ে স্থানীয় বসতিরা ঘরবাড়িতে ছিলেন। কিন্তু তারপরও তাদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। এতে তারা সহায় সম্বলহীন হয়ে পড়েছেন।

    এদিকে জনসংহতি সমিতির জেলা শাখার তথ্য ও প্রচার সম্পাদক মঙ্গল কুমার চাকমা বলেন, ‘এক মোটরসাইকেল চালকের লাশ উদ্ধারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ২০০টি ঘরবাড়ি ও দোকানপাট সম্পূর্ণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

    এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের সবাইকে গ্রেফতারেরও দাবি জানান তিনি। এদিকে পাহাড়িদের ওপর হামলার ঘটনায় মো. সবুজ, মো. খায়ের ও মামুন নামে তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

    লংগদু থানার ওসি মো. মোমিনুল ইসলাম এ ঘটনা জানিয়েছেন। তিনি জানান, সেনাবাহিনীর সদস্যরা তাদেরকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে।

    জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (১ জুন) লংগদু উপজেলা থেকে ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালক ও স্থানীয় সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন দুইজন যাত্রী নিয়ে দীঘিনালার দিকে রওয়ানা হন। দুপুরের পর দীঘিনালার চার মাইল এলাকায় তার মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পরে সন্ধ্যায় ফেসবুকে তার মৃতদেহের ছবি দেখে শনাক্ত করে পরিবার ও বন্ধুরা।

    শুক্রবার সকালে নয়নের লাশ লংগদুতে তার গ্রামের বাড়ি বাইট্টাপাড়া আনা হয়। সেখান থেকে লংগদুবাসীর ব্যানারে কয়েক হাজার বাঙালির একটি বিশাল শোকমিছিল উপজেলা সদরের দিকে যাওয়ার পথে প্রধান সড়কের পাশের লংগদু উপজেলা জনসংহতি সমিতির কার্যালয়সহ আশেপাশের পাহাড়িদের বাড়িঘরে আগুন দেওয়া হয়। এ ঘটনার পরপরই সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়।

    বৃহস্পতিবার সকালে খাগড়াছড়ি জেলার সদর উপজেলার চার মাইল এলাকায় রাঙামাটির লংগদু উপজেলার সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম নয়নের লাশ পাওয়া যায়।

    পরিবারের অভিযোগ, দুজন পাহাড়ি যাত্রী নিয়ে নয়ন লংগদু থেকে খাগড়াছড়ি যায়। তারপর থেকে নয়নের আর কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাশের ছবি দেখে পরিবারের লোকজন তার লাশ সনাক্ত করেন।

    এ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে শুক্রবার সকালে যুবলীগ নেতাকর্মীরা লংগদু উপজেলা পরিষদ মাঠে সমাবেশ করে। এতে বক্তব্য দেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা মো. জানে আলম, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শফিক, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. নাসির উদ্দিন, সম-অধিকার আন্দোলনের নেতা মো. আফসার আলী ও আলমগীর হোসেন।

    উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার দুজন পাহাড়ি নয়নের মোটরসাইকেল ভাড়া করেন। এরপর থেকে তার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। পাহাড়িরা নয়নকে হত্যা করেছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। এদিকে অগ্নিসংযোগের ঘটনা নিয়ে বাঙালি ও পাহাড়িদের পক্ষ থেকে পরস্পরবিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।

     

    জনসংহতি সমিতির জেলা শাখার সভাপতি মনি শংকর চাকমা বলেন, পাহাড়িদের দায়ী করে শুক্রবার সকালে বাঙালিরা তিন টিলা ও মানিকজোর ছড়া গ্রামে পাহাড়িদের দুই শতাধিক বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে। জনসংহতি সমিতির কার্যালয়ও পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। তার ঘরও পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

    অন্যদিকে সম-অধিকার অন্দোলনের স্থানীয় নেতা মো. আফসার আলী বলেন, ‘আমরা যখন প্রতিবাদ সমাবেশ করছিলাম, তখন কে বা কারা পাহাড়িদের ঘরে আগুন দেয়।’

    তিনি অভিযোগ করে বলেন, অতীতে স্বার্থান্বেষী কতিপয় পাহাড়ি দেশী-বিদেশী সাহায্যের জন্য নিজেদের কিছু কুঁড়ে ঘরে আগুন দিয়ে ঘটনার মোড় অন্যদিকে নিয়ে যায়। এবারও তেমন হতে পারে।

    এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বৃহস্পতিবার পৃথক বিবৃতি দেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান ও খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ওয়াদুদ ভূইয়া এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম সম-অধিকার আন্দোলন খাগড়াছড়ি শাখার সাধারণ সম্পাদক মো. মোশারফ হোসেন।

    ওয়াদুদ ভূইয়া বিবৃতিতে নিরীহ মোটরসাইকেল চালক হত্যার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন। একইসঙ্গে পাহাড়ের সকল সম্প্রদায়ের মানুষকে শান্ত থাকার জন্য আহ্বান জানান তিনি।

    রাঙামাটিতে নিহত নয়নের হত্যার বিচার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জেলা যুবলীগ। এছাড়া তা হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে খাগড়াছড়ি শহরে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে পার্বত্য বাঙালি ছাত্রপরিষদের একাংশ।

    সংবাদ প্রতিদিন বিডি/ সুকদেব নাথ 

    (Visited 10 times, 1 visits today)

    আরও সংবাদ

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *