Templates by BIGtheme NET
Home / আন্তর্জাতিক / লন্ডন অগ্নিকাণ্ড: বাংলাদেশি পরিবার নিখোঁজ – Songbad Protidin BD

লন্ডন অগ্নিকাণ্ড: বাংলাদেশি পরিবার নিখোঁজ – Songbad Protidin BD

  • ১৫-০৬-২০১৭
  • 1_8 আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ  লন্ডনে বহুতল যে ভবনে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে, ২৪ ঘণ্টা পরও সেখানে বসবাসরত বাংলাদেশের একটি পরিবারের খোঁজ মেলেনি। জানা গেছে, অগ্নিকাণ্ডস্থল গ্রেনফেল টাওয়ারের একটি ফ্ল্যাটে কমরু মিয়া, তার স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে বসবাস করতেন।

    লন্ডনের ২৪তলা এই ভবনে দেড় শতাধিক আবাসিক ফ্ল্যাট ছিল। এর মধ্যে ১৪২ নম্বর ফ্ল্যাটে মৌলভীবাজারের বাসিন্দা কমরু মিয়া পরিবার নিয়ে থাকতেন বলে তার স্বজনেরা জানিয়েছেন।

    মঙ্গলবার রাতে ওই ভবনটিতে আগুন লাগে। এতে এখন পর্যন্ত ১২ জন নিহত হয়েছে। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। আহত শতাধিক ব্যক্তিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

    ভবনে আটকে পড়া কমরু মিয়ার মেয়ে হাসনা বেগম তানিয়া চেলসিতে তাদের আত্মীয় আব্দুর রহিমকে রাত আড়াইটার দিকে ফোন করে বাঁচানোর আকুতি জানান।

    এরপর থেকে পরিবারটির আর কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন আব্দুর রহিম।

    মৌলভীবাজারের কৈয়াছড়া এলাকা থেকে আসা ৯০ বছর বয়সী কমরু মিয়া তার পরিবার নিয়ে বছরখানেক আগে ভবনটি ওঠে।

    আব্দুর রহিম জানান, আগুন লাগার পর রাতে তার চাচাতো বোনের সঙ্গে তার টেলিফোনে কথা হয়েছিল। তখন সে বাঁচার আকুতি জানাচ্ছিলেন।

    তিনি বলেন, ‘রাত আড়াইটার দিকে তানিমার সঙ্গে শেষ কথা হয়। তার আকুতি এখনো আমার কানে ভাসছে। সে বলছিল- আমরা সবাই এখন বাথরুমে, আমাদের বের হওয়ার কোনো উপায় নেই, দোয়া করেন আমাদের যেন কষ্টে মৃত্যু না হয়।’

    আব্দুর রহিম বলেন, ‘আগামী ২৯ জুলাই তানিমার বিয়ের দিন ঠিক ছিল। এ নিয়ে ব্যাপক প্রস্তুতি ছিল আমাদের। বিয়ের পর বাংলাদেশেও তাদের যাওয়ার কথা ছিল।’

    কমরু মিয়ার বড় ছেলে আব্দুল হাকিম তার স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে এনফিল্ডে আলাদা বাসায় থাকেন। অন্য দুই ছেলে আব্দুল হামিদ, আব্দুল হানিফ ও মেয়ে তানিমা বাবা-মার সঙ্গে থাকেন।

    তাদের কারো মোবাইল ফোনেই রাত আড়াইটার পর থেকে আর যোগাযোগ করা যাচ্ছে না বলে জানান আব্দুর রহিম।

    তিনি আরো বলেন, ‘রাত সোয়া ১টার দিকে তানিমার ফোনে আগুন লাগার খবর পাই। গাড়ি নিয়ে ২০ মিনিটের মধ্যে যাই গ্রেনফেল টাওয়ারের সামনে, তখন সেখানে আগুন জ্বলছিল। হাকিমও ততক্ষণে চলে আসে। এরপর রাত আড়াইটা পর্যন্ত তানিমার সঙ্গে কথা হয়। এরপর থেকে তারসহ অন্যদের ফোন বন্ধ পাচ্ছি।’

    এদিকে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে এ অগ্নিকাণ্ডের ‘যথাযথ তদন্তে’র প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি এই মর্মান্তিক ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

    (Visited 11 times, 1 visits today)

    আরও সংবাদ

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *