Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / অন্যান্য / বিসিকের পাঁচদিনব্যাপী মধু মেলা শুরু – Songbad Protidin BD

বিসিকের পাঁচদিনব্যাপী মধু মেলা শুরু – Songbad Protidin BD

  • ১৪-০৫-২০১৭
  • Honey-fairসংবাদ প্রতিদিন বিডি প্রতিবেদকঃ  বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক)-এর আধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে মৌচাষ উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্যোগে মতিঝিলস্থ বিসিক ভবন চত্বরে ১৪ হতে ১৮ মে  ২০১৭ পর্যন্ত ৫ দিনব্যাপী মধুমেলা-২০১৭ আয়োজন করা হয়েছে।

    ১৪ মে ২০১৭ তারিখ রোববার দুপুর ১১.০০টায় বিসিক ভবনের নীচ তলায়  (১৩৭-১৩৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০) উক্ত মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মুশতাক হাসান মুহঃ ইফতিখার, চেয়ারম্যান, বিসিক প্রধান অতিথি হিসেবে মধুমেলার উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মোঃ ইফতেখারুল ইসলাম খান, পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) ও মোঃ রফিকুল ইসলাম, সচিব, বিসিক, ঢাকা। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিসিকের পরিচালক (প্রকল্প) জনাব মোঃ রেজাউল করিম।

    প্রধান অতিথি বক্তব্যে বিসিক চেয়ারম্যান মুশতাক হাসান মুহঃ ইফতিখার বলেন বিসিক দেশব্যাপী ক্ষুদ্র, কুটির ও মাঝারি শিল্প খাতের উন্নয়নে উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন ধরনের সেবা-সহায়তা প্রদান করে আসছে। পাশাপাশি আধুনিক পদ্ধতিতে মৌচাষের মাধ্যমে মধু উৎপাদন বৃদ্ধির কার্যক্রমও পরিচালনা করছে। ১৯৭৭ সাল থেকে বিসিক মৌচাষের কার্যক্রম গ্রহণ করে। দেশে বর্তমানে দুই প্রজাতির যথা, অ্যাপিস মেলিফেরা এবং অ্যাপিস সেরেনা বা দেশজ প্রজাতির মৌমাছি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মৌবাক্সে চাষ করা হয়। মধূ উৎপাদন এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও সফল পরাগায়নের মাধ্যমে ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ দু প্রজাতির মৌমাছি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মৌবাক্সে চাষ করা প্রয়োজন। ফসলের মাঠে মৌমাছিরা বিচরণ করে সেখানে বাড়তি পরাগায়নের কারণে ফসলের উৎপাদন ৩০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়ে যায়।

    বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিসিকের পরিচালক  (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) বলেন, বাংলাদেশ হতে বছরে ১ থেকে ১.৫০ লক্ষ টন মধু বিদেশে রফতানি করা সম্ভব। এজন্য বিসিককে আরও কার্যকর ভূমিকা পালন করতে হবে। বাংলাদেশের মধুখাত একটি সম্ভাবনাময় খাত, বাংলাদেশে মধু বিশ্বের সবচেয়ে উৎকৃষ্টমানের মধু। মধু উৎপাদনের সাথে ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি সম্পর্ক যুক্ত  তাই এর জন্য সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিসিকের সচিব বলেন, মধু উৎপাদন, বোতলজাতকরণ, সংরক্ষণ এবং বাজারজাতকরণের জন্য আধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োগ নিশ্চিত করা দরকার। বিসিকের এ মৌমাছি পালন কর্মসূচির মাধ্যমে বর্তমানে দেশে সনাতন পদ্ধতির আহোরিত মধুর চেয়ে গুনগতমান ভাল ও উন্নতমানের মধু উৎপাদন করা সম্ভব।

    অনুষ্ঠানের সভাপতির বক্তব্যে বিসিকের পরিচালক (প্রকল্প) বলেন, আধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে দেশব্যাপী মৌচাষে মৌচাষীদের উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে মধু উৎপাদন বৃদ্ধি এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে মানুষের আয়বৃদ্ধির মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণ সম্ভব। এই কার্যক্রম পালনের মাধ্যমে ইতোমধ্যে বিসিক দেশব্যাপী প্রায় ১৮ হাজার নারী ও পুরুষকে আধুনিক পদ্ধতিতে মৌ-চাষ বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করেছে। তাছাড়া আধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে মৌচাষ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ৬ হাজার লোককে প্রদান করেছেন। প্রশিক্ষণ গ্রহণকারীদের অনেকেই বর্তমানে মৌ চাষের মাধ্যমে মধু উৎপাদনে যথেষ্ট সাফল্য অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন। মৌ-চাষীদের উৎপাদিত মধুর ব্যাপক পরিচিতি ও বাজার সৃষ্টি এবং মধু ব্যবহার সম্পর্কে মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরীর লক্ষ্যে এই মধুমেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তাছাড়া অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন প্রকল্প পরিচালক খন্দকার আমিনুজ্জামান ও মৌচাষ কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবাদুল্লাহ আবদাল।

    দেশের বিভিন্ন এলাকার মৌ-চাষীদের উৎপাদিত মধু বিক্রি ও প্রদর্শনের লক্ষ্যে মেলায় ৩০টি স্টল স্থান পেয়েছে। মেলা চলবে ১৪-১৮ মে ২০১৭ পর্যন্ত।  প্রতিদিন সকাল  ৯.০০ টা থেকে বিকাল ৫.০০ টা পর্যন্ত মেলা সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

    সংবাদ প্রতিদিন বিডি/ আসলাম খান 

    (Visited 15 times, 1 visits today)

    আরও সংবাদ

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *