Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / Slide Show / বঙ্গবন্ধুর অবদান অস্বীকারকারীরা স্বাধীনতায় বিশ্বাসী কিনা সন্দেহ আছে : প্রধানমন্ত্রী – Songbad Protidin BD

বঙ্গবন্ধুর অবদান অস্বীকারকারীরা স্বাধীনতায় বিশ্বাসী কিনা সন্দেহ আছে : প্রধানমন্ত্রী – Songbad Protidin BD

  • ১০-০৮-২০১৭
  • image-45900সংবাদ প্রতিদিন বিডি প্রতিবেদকঃ বঙ্গবন্ধুর অবদানকে অস্বীকার করা বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে অস্বীকার করার শামিল বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার বিকেলে গণভবনে জন্মাষ্টমী উপলক্ষে হিন্দু ধর্মের অনুসারীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন।

    এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ২৫ মার্চ বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতারের পর পাকিস্তান সরকার প্রহসনমূলক বিচার করে তাকে ফাঁসির রায় পর্যন্ত দিয়েছিল। কিন্তু ইয়াহিয়া তো জিয়াকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করেননি। তার কথাও বলেননি। তিনি শুধু একজনের কথা বলেছিলেন। সেটা হলো শেখ মুজিবুর রহমান। সেসময় বঙ্গবন্ধুকে দোষারোপ করে পাকিস্তানের শত্রু হিসাবে ঘোষণা করেছিলেন ইয়াহিয়া।

    এই সত্যটা যে উপলব্ধি করতে পারবে না; সে আদৌ বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে কিনা, সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী সন্দেহ প্রকাশ করেন।

    শেখ হাসিনা হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উদ্দ্যেশে বলেন, সনাতন ধর্মের অনুসারীরা বাংলাদেশের মাটির সন্তান। তারা তাদের মর্যাদা নিয়ে এই দেশে বসবাস করবেন। উৎসবমুখর পরিবেশে উৎসব পালন করবেন। তিনি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সংখ্যালঘু বলতে রাজি নয়। হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান আর মুসলমান সবাই সমান অধিকার নিয়ে থাকবে।

    প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীকে বাতিলের রায় পর্যালোচনা করে বলেছেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা কোনো একক ব্যক্তির কারণে হয়নি।

    গণভবনে অনুষ্ঠিত এ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার এসকে সিনহার ওই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা না হলে, এস কে সিনহা প্রধান বিচারপতি হতে পারতেন না। বাংলাদেশের সনাতনি সমাজ এস কে সিনহার সাথে নেই। ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে প্রধান বিচারপতি রাজনীতি করেছেন বলেও মন্তব্য করেন এই প্রতিমন্ত্রী।

    প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, এই ভূখণ্ডের জন্ম কার জন্যে তা পুরো বিশ্ববাসী জানে।

    অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জয়ন্ত সেন দীপু, জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের সভাপতি দেবাশীষ পালিত, মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি ডি এল চ্যাটার্জি, জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের সাবেক সভাপতি রমেশ ঘোষ এবং জন্মাষ্ঠমী উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক চন্দন তালুকদার প্রমুখ বক্তব্য দেন।

    (Visited 10 times, 1 visits today)

    আরও সংবাদ

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *