Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / ফেনী / তিনটি আসন থেকে প্রার্থী হবেন খালেদা জিয়া- Songbad Protidin BD

তিনটি আসন থেকে প্রার্থী হবেন খালেদা জিয়া- Songbad Protidin BD

  • ১৯-০৫-২০১৭
  • image-34857সংবাদ প্রতিদিন বিডি রিপোর্টঃ  অতীতের ‘ভুল’ থেকে শিক্ষা নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেয়ার কথাই ভাবছে। খোদ দলীয় চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কোনো আইনি ঝামেলা না থাকলে তিনটি আসন থেকে প্রার্থী হতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে। এ তিনটি সম্ভাব্য আসন হচ্ছে সিলেট, ফেনী ও বগুড়া।

    সূত্র মতে, দলটির আসনভিত্তিক সম্ভাব্য প্রার্থী বাছাইয়ের প্রক্রিয়াও এগিয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীরা লবিয়িং শুরু করেছেন। ৩০০ আসনের প্রতিটিতে তিনজন করে খসড়া প্রার্থী তালিকা রয়েছে চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার হাতে। অনেক আসনে তিন জনের অধিক প্রার্থীর নামও রয়েছে। জানা গেছে, বিএনপি ৯ শতাধিক প্রার্থীর তালিকা নিয়ে কাজ শুরু করবে।

    ইতিমধ্যে দলের হাইকমান্ডের পক্ষ থেকে আন্দোলন এবং নির্বাচনের প্রস্তুতির বার্তা নিয়ে সারাদেশে কর্মিসভা প্রায় শেষ করেছেন দলের ৫১টি সাংগঠনিক টিম। ওই ৫১টি টিমের প্রতিবেদন প্রস্তুত হচ্ছে এখন। ওই প্রতিবেদনগুলো পর্যালোচনার পর ৩০০ আসনের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা করা হবে বলে জানা গেছে।

    দলের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলেছে, নির্বাচনে যাবে বিএনপি। তবে এজন্য একটি গ্রহণযোগ্য, নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ থাকতে হবে। নির্বাচনের মাঠ সমতল হতে হবে। এক্ষেত্রে সরকার ছাড় না দিলে বিএনপি কি করবে সে পরিকল্পনাও তৈরি আছে।

    বিএনপির দুই সিনিয়র নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও আবদুল্লাহ আল নোমান একাধিক আলোচনা সভায় বলেছেন, সরকারকে ফাঁকা মাঠে আর ছাড়া হবে না। আগামী নির্বাচনে বিএনপি যাবে, বর্জন করবে না। তবে সে নির্বাচন হতে হবে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডে এবং সহায়ক সরকারের অধীনে। তারা বলেছেন, আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমে দেশে এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হবে যাতে সরকার নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার দিতে বাধ্য হবে।

    ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘মানুষ বর্তমান সরকারের পরিবর্তন চায়, সে জন্য বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে। আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণ এই পরিবর্তন আনবে। নির্বাচন করতে হবে এ জন্য যে, বিগত সাড়ে তিন বছর ধরে অনির্বাচিত এই সরকার জবাবদিহিতা ছাড়াই দেশ শাসন করছে। বাংলাদেশের মানুষ এখন এই সরকারকে আর সহ্য করতে পারছে না। খালেদা জিয়া ঘোষিত রূপকল্প ২০৩০ এর মাধ্যমে দেশের মানুষের সঙ্গে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের একটা চুক্তি সম্পাদিত হয়েছে। আমরা এটাতে কমিটেড। আমরা ভিশন ২০৩০ বাস্তবায়ন করার সুযোগ পাব। জনগণ সেই সুযোগের অপেক্ষায় আছে।’

    তিনি বলেন, আমরা চাই যাতে জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে যার যার ভোট যাকে খুশি তাকে দিতে পারে। যদি সরকার এটা নিয়ে সমঝোতায় না আসেন, তাহলে এমন আন্দোলন করবো যাতে সরকার বাধ্য হয়। দেশে একদলীয় নির্বাচন আর হবে না। আমরা নির্বাচন করব এবং আন্দোলন করব।

    দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, গতবার একতরফা নির্বাচন করতে পারলেও এবার বিএনপিকে বাদ দিয়ে নির্বাচন সহজ হবে না। তিনি বলেন, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য ৩০০ আসনে বিএনপির ৯০০ প্রার্থীর খসড়া তালিকা প্রস্তুত রয়েছে। প্রতিটি নির্বাচনী এলাকায় বিএনপির তিন-চারজন করে প্রার্থী আছেন।

    দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিবে। বিএনপিকে ছাড়া নির্বাচন হবে না। সারাদেশেই আমাদের নির্বাচনী প্রস্তুতি রয়েছে। তিনি বলেন, তিনশ আসনের প্রার্থী তালিকার বেশিরভাগই চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার খসড়া তালিকায় আছেন। বড় জোর ২০ থেকে ২৫ আসনের প্রার্থী তালিকা বাকি থাকতে পারে। নির্বাচনের আগেই এই তালিকা চূড়ান্ত করা হবে। এ মুহূর্তে নির্বাচন হলে বিএনপি ম্যাডামের সঙ্গে এক ঘণ্টার বৈঠকে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতে পারবে। কাকে, কোথায় মনোনয়ন দেবেন, সে বিষয়ে খালেদা জিয়ার স্পষ্ট ধারণা আছে।

    সূত্রে জানা গেছে, বেগম খালেদা জিয়া আগামী নির্বাচনে সিলেট, ফেনী ও বগুড়া থেকে অংশ নিতে পারেন। গত মঙ্গলবার গুলশান কার্যালয়ে দলের সিনিয়র নেতাদের সাথে এক বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা হয়। এ বিষয়টি আসনগুলোতে আগাম জানিয়ে দেয়ার চিন্তা করা হচ্ছে। যাতে তারা প্রচারের প্রস্তুতি নিতে পারেন।

    সংবাদ প্রতিদিন বিডি/ ইকবাল আহমেদ 

    (Visited 81 times, 1 visits today)

    আরও সংবাদ

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *