Templates by BIGtheme NET
শিরোনামঃ
Home / আরও / জমজমাট শুক্রাণু ব্যবসা – Songbad Protidin BD

জমজমাট শুক্রাণু ব্যবসা – Songbad Protidin BD

  • ০৪-০৬-২০১৭
  • sperm_picসংবাদ প্রতিদিন বিডি ডেস্কঃ  শিরোনাম দেখে হকচকিয়ে যাওয়ার কিছু নেই। আদতে তা-ই, জমজমাট ব্যবসা চলছে শুক্রাণুর। তবে দাতার কিছু যোগ্যতা থাকা চাই। পশ্চিমবঙ্গসহ গোটা ভারতে রীতিমতো বিজ্ঞাপন দিয়ে কেনা হচ্ছে শুক্রাণু। খবর আনন্দবাজার’র। শুক্রাণুদাতার ক্ষেত্রে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, আইআইএম পাশ বা চাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টের দর সবচেয়ে বেশি। আর ডিম্বাণুর ক্ষেত্রে সৌন্দর্যটাই বড় শর্ত।

    স্পার্ম ব্যাংকের কর্মকর্তা ও চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, ডাক্তার, আইআইটি বা আইআইএম পাশ শুক্রাণুদাতার জন্য বেশির ভাগ গ্রহীতা তিন-চার গুণ বেশি দাম দিতেও রাজি।

    বন্ধ্যাত্ব বিশেষজ্ঞ রোহিত ঘুটঘুটিয়া বলেন, ‘কম শিক্ষিত দাতার এক ভায়েল শুক্রাণুর জন্য যেখানে ২০০০ টাকা নেয়া হয়, সেখানে অতি উচ্চশিক্ষিত দাতার এক ভায়েল শুক্রাণুর দর ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকাও উঠছে।’

    ইচ্ছুক বাবা-মায়েদের বিশ্বাস, শুক্রাণুদাতা মেধাবী হলে তার জিনের কারণে সন্তানেরও সেই রকম মেধামী হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।

    এজন্য কলকাতার একাধিক স্পার্ম ব্যাংক ‘মেধাবী’ শুক্রাণুদাতা পেতে নিয়মিত নামী বিশ্ববিদ্যালয়, ইঞ্জিনিয়ারিং ও মেডিকেল কলেজগুলোতে লিফলেট বিতরণ, পোস্টার সাঁটানো, ‘হুইসপারিং ক্যাম্পেইন’ চালাচ্ছে।

    কলকাতার সব স্পার্ম ব্যাংকই শুক্রাণুদাতার ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা ধার্য করেছেন ‘স্নাতক’।

    ল্যান্সডাউনের একটি স্পার্ম ব্যাংকের কর্ণধার ডা. রাজীব অগ্রবাল জানান, শুক্রাণুদাতা নীরোগ কিনা বা উচ্চবর্ণের কিনা- এতোদিন লোকে তা নিয়ে মাথা ঘামাতেন। এখন অগ্রাধিকারের শীর্ষে উঠে এসেছে ‘উচ্চশিক্ষা’।

    একই কথা জানান বেহালার আর্যপল্লীর এক স্পার্ম ব্যাংকের কর্মকর্তা সুজয় দাস। তিনি বলেন, ‘কয়েক দিন আগে আমার কাছে মারওয়াড়ি এক শুক্রাণু-গ্রহীতা দম্পতি এসেছিলেন। ভদ্রলোক নিজে চাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট। চাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট শুক্রাণুদাতার জন্য তিনি মরিয়া ছিলেন।’

    কলকাতায় চাহিদা মতো শুক্রাণু পাওয়া না গেলে চড়া দামে ভিন্ন রাজ্যের স্পার্ম ব্যাংক থেকেও ‘উচ্চশিক্ষিত’ শুক্রাণু আনা হচ্ছে।

    দক্ষিণ দিল্লির একটি কেন্দ্রের প্রধান নন্দন নেগির কথায়, ‘আইআইটি-আইআইএম-মেডিকেল কলেজে পোস্টার, লিফলেটিং, ফেস্ট-এ স্টল দেওয়া হয়। নয়তো উচ্চশিক্ষিত শুক্রাণুদাতা পাব কী করে?’

    তবে ডিম্বাণুদাত্রীদের ক্ষেত্রে কিন্তু একমাত্র মাপকাঠি ‘সৌন্দর্য’। বন্ধ্যাত্ব বিশেষজ্ঞেরাও মানছেন, ডিম্বাণুদাত্রীর ক্ষেত্রে অধিকাংশ মানুষই শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছেন না। ডিম্বাণু সূত্রেও যে শিক্ষার উত্তরাধিকার সন্তানের মধ্যে আসতে পারে, অধিকাংশই তাতে বিশ্বাসী নন।

    মনোবিদ নীলাঞ্জনা সান্যালের ব্যাখ্যা, ‘তার মানে মানুষ এখনো পৌরুষের সঙ্গে ধারালো মেধাকে যুক্ত করে। নারী শুধুই দেহসর্বস্ব।

    সংবাদ প্রতিদিন বিডি/ ডেস্ক 

    (Visited 18 times, 1 visits today)

    আরও সংবাদ

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    *